Search the Community

Showing results for tags 'ইন্ডিকেটর'.



More search options

  • Search By Tags

    Type tags separated by commas.
  • Search By Author

Content Type


  • সাধারণ ফরেক্স সহায়তা
  • ফরেক্স ট্রেডিং আলোচনা, ট্রেডিং স্ট্রেটিজি, নিউজ এবং সিগন্যাল সম্পর্কিত
    • ফোরাম ও পোর্টাল সহায়তা
    • সাধারণ ফরেক্স ট্রেডিং আলোচনা
    • নিউজ, সিগনাল ও এনালাইসিস
    • প্রশ্ন ও উত্তর
    • ট্রেডিং স্ট্রেটিজি
    • ফরেক্স স্টাডি
  • বিজ্ঞাপন
    • কমার্শিয়াল কন্টেন্ট
    • ক্রয়-বিক্রয়-এক্সচেঞ্জ
  • ট্রেডিং সফটওয়্যার (প্লাটফর্ম-মেটা ট্রেডার)
    • ইন্ডিকেটর
    • অটোট্রেডিং
    • মেটাট্রেডার ৪, ৫
  • ফরেক্স ব্রোকার সম্পর্কিত
    • ফরেক্স ব্রোকার
    • ফরেক্স অফার
    • পেইমেন্ট মেথড
  • অফ-টপিক

Categories

  • সাধারণ ফরেক্স বই
  • টেকনিক্যাল এনালাইসিস
  • ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস
  • ক্যান্ডলেস্টিক এনালাইসিস
  • ইনডিকেটর

Group


ওয়েবসাইট URL


ইয়াহু(Yahoo)


স্কাইপ(Skype)


ঠিকানা


ইচ্ছা/আগ্রহ/শখ

Found 4 results

  1. সাবধান ... Karl Dittman এর সকল Indicator থেকে দূরে থাকুন। বিশেষ করে আমার মত নতুন ট্রেডাররা... এই লোক আমার জানা মতে মোট ৫০ টি Indicator বাজারে ছেড়েছে... Indicatorস গুলার List: 1. 100 pips dailys calper 2. 100 pips fx gainer 3. ama 4. atr levels 5. auto fibo phenomenon 6. box 7. Brain Trend 1 8. breakout 9. buy sell – magic 10. chandelier stops v1 11. Commentator 12. Damiani volatmeter 13. DeMark Trendline Trader 14. dtrend 15. Easy Trend Visualizer 16. EMA 5 10 34 Crossoverl 17. EMA 5,6 Crossover 18. Extra Signal 19. forex session 20. free scalping indicator 21. fx daily trend 22. fx secret signal 23. inst buy sellsig 24. fx sniper t3 cci 25. GMACD 26. fmiracle 27. indicator strength 28. Intraday 29. itrend 30. MLD 31. mmr 32. MTF MACD 33. multitrend signal 34. non lag dot 35. over trend 36. Pro System 37. sf trend lines 38. SHMA 39. sidus v.2 40. super buy sell profit 41. super scalper 42. sup-res 43. TA 1.14b 44. trend dinamic index 45. Trend lines 46. trend lines2 47. trix 48. tvi2 49. ultra fast profit 50. xma He is just a salesman.... Indicator ব্যাবহার করা আগে ভেবে চিন্তে ব্যাবহার করুন...
  2. আগে ঠিক করুন, আপনি গাছ দেখতে চান নাকি বন দেখতে চান? ধরুন আপনি বনের ভেতর হারিয়ে গেছেন। বনের ভেতর দিয়ে হাটছেন আর নজরে পড়ছে শুধু গাছ আর গাছ। কোথায় কয়টা গাছ আছে, কোন গাছ কত বড়, বনের শুরু কোথায়- শেষ কোথায়, কিছুই বোঝা যায়না। এভাবে পথ খুঁজে বের করা বেশ মুশকিল হবে, হয়ত দেখা যাবে ঘুরে ফিরে সেই একই যায়গায় চলে আসছেন! কিন্তু আপনি যদি একটা হেলিকপ্টার নিয়ে উপর থেকে বনটা দেখেন, তখন পুরো বন কত বড়, কত দূর গেছে সে সম্পর্কে ভাল ধারনা পাবেন। ফরেক্স মার্কেটে কোন কারেন্সি পেয়ারকে যদি আমরা বনের সাথে তুলনা করি, তাহলে জিগজ্যাগ ইন্ডিকেটর এখানে অনেকটা ঐ হেলিকপ্টারের মতই। এটা বনের ভেতর ইতি উতি পথ না খুঁজে উপর থেকে পুরো বনটা দেখার উপায় বলে দেয়। এখানে প্রাইসের গতির ছোট খাট পরিবর্তন গুলি হচ্ছে বনের গাছের মত, কিন্তু বড় পরিবর্তনগুলো সত্যিকার অর্থে ট্রেন্ডের গতিবিধি বুঝতে সহায়তা করে। জিগজ্যাগ ইন্ডিকেটর এই ছোট খাট পরিবর্তনগুলি ইগনোর করে বড় পরিবর্তন অনুযায়ী ট্রেন্ডের গতিবিধি তুলে ধরে। ফলে ওভারল মার্কেট সিচুয়েশন আপনার সামনে পরিস্কার হয়। জিগজ্যাগ ইন্ডিকেটর কি? ট্রেন্ডকে অনুসরন করছে এমন একটি ইন্ডিকেটর যা প্রতিমুহূর্তে প্রাইসের গতির পরিবতন সম্পর্কে আগে থেকে সিগন্যাল দেয় তাকে জিগজ্যাগ ইন্ডিকেটর বলে। প্রাইসের গতির অনিয়মিত পরিবর্তনগুলি দূর করে দিয়ে একচুয়াল পরিবর্তনগুলোতে ফোকাস আনার জন্য এই ইন্ডিকেটর ব্যবহার হয়। জিগজ্যাগ ইন্ডিকেটর কীভাবে কাজ করে? জিগজ্যাগ ইন্ডিকেটরকে অন্যান্য ইন্ডিকেটর মত ব্যাবহার করা যায় না। এটা মূলত প্রাইসের গতিবিধির ছোটখাট পরিবর্তনগুলি আমলে না এনার একটা পদ্ধতি। সাধারণত প্রাইসের যেকোনো অবস্থানের ১০% পরিবর্তন জিগ জ্যাগ লাইনে কোন চেঞ্জ আনেনা। শুধু মাত্র ১০% এর বেশি কোন পরিবর্তন হলেই জিগ জ্যাগ লাইনে এর প্রভাব পরে। এভাবে ছোট খাট মুভমেন্ট গুলো ফিল্টার কররে ফেললে অভারল ধারনাটা ভাল হয়। নিচের চিত্রটি দেখুনঃ চিত্রে নিল রঙের যে লাইন দেখতে পাচ্ছে সেটা হচ্ছে অরিজিনাল প্রাইস লাইন। আর গোলাপি রঙের যে ডট ডট লাইন দেখছেন সেটা হচ্ছে জিগজ্যাগ লাইন। এখানে আপনারা দেখছেন প্রাইসের আপ ডাউনের সাথে সাথে অরিজনাল প্রাইস লাইন মুভ করছে। কিন্তু জিগজ্যাগ লাইন প্রতিবার পয়েন্ট চেঞ্জ করার সময় একটা নির্দিষ্ট সরল রেখা তৈরি করে এগিয়ে যাচ্ছে। এখন আপনার মনে হতে পারে এর কার্যকারিতা কি? লক্ষ করে দেখুন চিত্রে মাঝখানে এক যায়গায় অরিজিনাল প্রাইসের আগের পয়েন্ট থেকে পরের পয়েন্টে ৭% পরিবর্তন হয়েছে কিন্তু জিগজ্যাগ লাইন তা ইগনোর করে এগিয়ে গেছে। এক্কেবারে শেষ জিগজ্যাগ লাইন একটু দেখুন। যেখানে থেমেছে তা ৭% পরিবর্তন এর কম! তার মানে ৭% লাইনটি ইগনর করার ফলে কোন সমস্যাই হয়নি, জিগজ্যাগ প্রাইসের ট্রেন্ড খুব ভালভাবেই বের করে আনতে পেরেছে। জিগজ্যাগ লাইন রিট্রেসমেন্টঃ নরমাল জিগজ্যাগ লাইনের পাশাপাশি এখান থেকে রিট্রেস জিগজ্যাগ নামক এক ধরনের স্ট্রটেজি বের করে আনা যায়। নিচে চিত্রটি দেখুনঃ এখানে লাইন এক এর স্টারটিং পয়েন্ট ২১.৯২ আর এন্ডিং পয়েন্ট ২৮.৯৯।এখানে পার্থক্য= ৭.০৭, একই ভাবে লাইন দুই এর ক্ষেত্রে পার্থক্য= ৪.৫১ এবং লাইন তিন এর ক্ষেত্রে= ৭.৪২। এখন লাইন এক ও দুই এর রিট্রেসমেন্ট= ৪.৫১/৭.০৭= .৬৩৮। এর মানে লাইন দুই হচ্ছে লাইন এক এর ৬৩.৮%। তারমানে পরের লাইনটি প্রথম লাইন থেকে ছোট, অর্থাৎ প্রথম লাইনের প্রাইসের ট্রেন্ড থেকে দ্বিতীয় লাইনের প্রাইসের ট্রেন্ড কম শক্তিশালী ছিল। লাইন দুই ও তিন এর রিট্রেসমেন্ট= ৭.৪২/৪.৫১= ১.৬৪৬ এর মানে লাইন তিন হচ্ছে লাইন দুই এর ১৬৪.৬% এখানে তিন নম্বর লাইন এর প্রাইস ট্রেন্ড দুই নম্বর লাইনের চেয়ে বেশি শক্তিশালী। এই ভাবে হিসেব করে আপনি চাইলে পরবর্তী লাইনের প্রাইস ট্রেন্ড এর শক্তিমত্তা প্রেডিকশন করতে পারবেন। জিগজ্যাগ লাইন কি সিগন্যাল দেয়? জিগজ্যাগ প্রাইস একশন সম্পর্কে ধারনা দিলেও সরাসরি বাই বা সেলের সিগন্যাল দেওয়ার পাওয়ার এর নেই। মূলত বেসিক এনালাইসিস এর কাজে সহায়তা করার জন্য এর সৃষ্টি। প্রাইস এর গতির ছোট ছোট পরিবর্তনগুলি অনেক সময় প্রাইস আপ হবে না ডাউন হবে এ সম্পর্কে ভুল ধারনা সৃষ্টি করতে পারে। ফলে এসময় ট্রেডার বাই বা সেলের ডিসিশন নিলে ভুল যাওয়ার সুযোগ থাকে। তাই প্রাইসের গতিবিধি সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার জন্য জিগজ্যাগ ইন্ডিকেটর এর সাহায্য নেওয়াটা আমি ভাল মনে করি। সাবধানতা মনে রাখবেন জিগজ্যাগ ব্যবহারের সময় সব ক্ষেত্রে বুঝে নিতে হবে বর্তমানে প্রাইসের যে লাইন যাচ্ছে তা টেম্পোরারি নাকি পার্মানেন্ট। বর্তমান প্রাইস চেঞ্জ যদি জিগজ্যাগ প্যারামিটার থেকে কম হয় তবে বর্তমান লাইনটি টেম্পোরারি। এই লাইন দেখে কোন ট্রেড করবেন না। কিন্তু বর্তমান প্রাইস চেঞ্জ জিগজ্যাগ প্যারামিটারের বেশি বা সমান হলে এই লাইন টা পার্মানেন্ট বলা যাবে। এক্ষেত্রে আপনি ডিসিশন নিতে পারবেন সহজে। পোস্টটি পূর্বে প্রকাশিত হয়েছিল এখানেঃ জিগজ্যাগ সিসিআই ইন্ডিকেটর নিয়ে আমার আর একটি পোস্টঃ
  3. সিসিআই ইন্ডিকেটর কে যদিও নতুন বলছি কিন্তু এটি আসলে নতুন কিছু নয়। নতুন বলছি কারন ইদানীং দেশি ট্রেডারদের মধ্যে এর ব্যাবহার দেখতে পাচ্ছি। কিন্তু বাইরের ট্রেডারদের কাছে এটি নতুন কিছু নয়। ১৯৮০ সালে ডোনাল্ড ল্যামবারট নামে একজন সফল ট্রেডার সিসিআই ইন্ডিকেটর আবিস্কার করেন। আবিস্কারের পর থেকেই ইন্ডিকেটরটি ব্যপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। আমাদের দেশে তেমন একটা ব্যবহার না হলেও বাইরের ফরেক্স ট্রেডারদের কাছে এটি খুবই কমন একটি ইন্ডিকেটর। সিসিআই ইন্ডিকেটর কি? কমোডিটি চ্যানেল ইন্ডিকেটর বা সিসিআই টেকনিক্যাল এনালাইসিস এর একটি জনপ্রিয় মাধ্যম যা আমাদের মার্কেটর ওভারবথ বা ওভারসোল্ড পরিস্থিতি সম্পর্কে ধারনা দেয়ার পাশাপাশি বাই বা সেল করার চমৎকার সিগন্যাল দেয়। এটা সাধারণত বৃত্তাকার ট্রেন্ড নির্ণয় করতে সহায়তা করে। কীভাবে সিসিআই গননা করবেন? এটা মূলত প্রাইসের মুভিং এভারেজ এবং এভারেজের ডেভিয়েশন এর উপর ভিত্তি করে নির্ণয় করা হয়। সিসিআই ক্যালকুলেশন করার ফর্মুলাঃ সিসিআই ইন্ডিকেটরের কি কাজে লাগে? ট্রেডাররা মূলত তিনটি জিনিস বোঝার জন্য সিসিআই ব্যবহার করে থাকেন। এগুলো হলঃ ১. প্রাইস রিভার্স বা প্রাইসের বিপরীতমুখী গতির পয়েন্ট ২. প্রাইস এক্সট্রিম বা প্রাইসের সর্বচ্চ টপ-ডাউন পজিশন ৩. ট্রেন্ড স্ট্রেন্থ বা ট্রেন্ডের গতির শক্তিমত্তা তবে অন্যান্য ইন্ডিকেটরের মত সিসিআই ব্যাবহার করার পাশাপাশি অন্যান্য ইন্ডিকেটর দেখে নিলে সিদ্ধান্ত নিতে সুবিধা হবে। সিসিআই কে মোমেমটাম ইন্ডিকেটর, ভলিউম ইন্ডিকেটর ও প্রাইস ইন্ডিকেটর তিন ক্যাটাগরিতেই ফেলা যায়। ওভারবথ বা ওভারসোল্ড অবস্থা থেকে প্রাইস ট্রেন্ডের ডাইভারজেন্স হিসেব করার জন্য এটা খুব কাজে দেয়। এদিক থেকে সিসিআই ইন্ডিকেটর বোলিঙ্গার ব্যান্ড এর সাথে অনেকটা মেলে। সিসিআই থেকে কীভাবে সিগন্যাল পাওয়া যায়? নিচের চিত্রটি লক্ষ করুনঃ উপরের চিত্রে মাঝখানের জিরো লাইনটি হচ্ছে সিসিআই এর মূল লাইন। সিসিয়াই সাধারণত এই জিরো লাইনের উপরে বা নিচে ওঠানামা করে। এটা যখন +১০০ বা -১০০ এর মধ্যে থাকে তখন তাকে নরমাল বলা যায়। কিন্তু +১০০ এর উপরে উঠে গেলে বা -১০০ এর নিচে নেমে গেলে কি হবে? উপরের চিত্রটি আর একবার দেখুন। +১০০ এর উপরে চলে গেলে তাকে বলা যায় ওভারবথ এবং -১০০ এর ইচে নেমে গেলে তাকে বলা যায় ওভারসল্ড। কীভাবে সিসিআই দেখে বাই বা সেল করার সিগন্যাল বুঝব? সিসিআই থেকে বাই বা সেল করার অপরচুনিটি খুব সহজেই বুঝা যায়। প্রায় ৭০ থেকে ৮০ ভাগ সময় সিসিআই +১০০ থেকে -১০০ রেঞ্জের মধ্যে থাকে। মাত্র ২০ থেকে ৩০ ভাগ সময় বাই বা সেল করার সিগন্যাল পাওয়া যায়। উপরের চিত্রটি খেয়াল করুন। সিসিআই +১০০ এর উপরে গেলে বুঝতে হবে মার্কেটে দারুন আপ ট্রেন্ড চলছে, এটা বাই করার সিগন্যাল। কিন্তু সিসিআই যদি +১০০ এর ভেতরে চলে আসে তখন পজিশন চেঞ্জ করা ভাল। আবার সিসিআই -১০০ এর নিচে চলে গেলে বুঝা যায় ডাউনট্রেন্ড চলছে, সেল করার পাওয়া যাচ্ছে। আবার -১০০ এর রেঞ্জের ভেতর চলে গেলে পজিশন চেঞ্জ করা উচিৎ। সিসিআই ইন্ডিকেটরের কার্যকারিতা কি? সিসিআই এর কার্যকারিতা বোঝার জন্য নিচের চিত্রটি দেখতে পারেন। আশাকরি পরিস্কার ধারনা হবে। তারপরও বুঝতে সমস্যা হলে একটু কমেন্ট করে বলবেন। পোস্টটি পূর্বে প্রকাশিত হয়েছিল এখানেঃ সিসিআই ইন্ডিকেটর এছাড়া যেকোনো সাহায্যের জন্য bdforexpro তে আমার এই থ্রেডে প্রশ্ন করতে পারেনঃ ভাল থাকুন সবাই, হ্যাপি ট্রেডিং!
  4. Best Scalping Indicator : 3 Level ZZ Semafor This 3 Level ZZ Semafor Indicator can be used on every timeframe, and the best timeframe is M5 and M15. This indicator can be running well in Metatrader 4 and 5, actually the strategy is very simple, look this picture below : <a href="http://4.bp.blogspot.com/-En_TpcSViMg/USortdXmHsI/AAAAAAAAACg/x91pEYr0pNI/s1600/3+Level+ZZ+Semafor.jpg" style="margin-left: 1em; margin-right: 1em;">