Search the Community

Showing results for tags 'eur/usd forecast'.



More search options

  • Search By Tags

    Type tags separated by commas.
  • Search By Author

Content Type


  • সাধারণ ফরেক্স সহায়তা
  • ফরেক্স ট্রেডিং আলোচনা, ট্রেডিং স্ট্রেটিজি, নিউজ এবং সিগন্যাল সম্পর্কিত
    • ফোরাম ও পোর্টাল সহায়তা
    • সাধারণ ফরেক্স ট্রেডিং আলোচনা
    • নিউজ, সিগনাল ও এনালাইসিস
    • প্রশ্ন ও উত্তর
    • ট্রেডিং স্ট্রেটিজি
    • ফরেক্স স্টাডি
  • বিজ্ঞাপন
    • কমার্শিয়াল কন্টেন্ট
    • ক্রয়-বিক্রয়-এক্সচেঞ্জ
  • ট্রেডিং সফটওয়্যার (প্লাটফর্ম-মেটা ট্রেডার)
    • ইন্ডিকেটর
    • অটোট্রেডিং
    • মেটাট্রেডার ৪, ৫
  • ফরেক্স ব্রোকার সম্পর্কিত
    • ফরেক্স ব্রোকার
    • ফরেক্স অফার
    • পেইমেন্ট মেথড
  • অফ-টপিক

Categories

  • সাধারণ ফরেক্স বই
  • টেকনিক্যাল এনালাইসিস
  • ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস
  • ক্যান্ডলেস্টিক এনালাইসিস
  • ইনডিকেটর

Group


ওয়েবসাইট URL


ইয়াহু(Yahoo)


স্কাইপ(Skype)


ঠিকানা


ইচ্ছা/আগ্রহ/শখ

Found 6 results

  1. ১৯টি দেশের একক কারেন্সি হওয়াই EUR/USD বিশ্বের বহুল জনপ্রিয় একটি ট্রেডিং কারেন্সি। দীর্ঘদিনের ইউরো ঋণ সংকটের কারনে ইউরো জোনের বেশ কিছু মাথাউঁচু দেশ যেমন গ্রিস, পর্তুগাল, আয়ারল্যান্ড, ইতালি, এবং স্পেন হেলে পড়েছিল এই ক্রাইসিস কোনভাবেই ইউরো’র পিছু ছাড়ছিল না। অবশেষে ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাংক এবং প্রেসিডেন্ট মারিও Draghi এর নেতৃত্বের সঙ্কটে পড়া দেশ গুলোর একটি যুগান্তকারি পদক্ষেপ মানিটারি ইউনিয়ন এর সাথে সংযুক্ত হওয়ায় আবার যেন ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে যার ফলাফল সরুপ গত সম্পুর্ন জুলাই মাস ধরে EUR ক্রমাগতিক ঊর্ধ্বগতি তা বলে দেয়। বর্তমানে জার্মানির অতিরিক্ত ট্রেডিং উৎসই বলে দেয় যে গোটা EUR এখন আর্থিক শক্তিশালী ; বর্তমানে যেহেতু নতুন কোন অবশিষ্টতা নেই তাই EUR ট্রেডিং আর অন্তপ্রবাহ বলে যে সাধারন কারেন্সির ঊর্ধ্বগতি এখন তুঙ্গে। ব্রেক্সিট এর পরে সমস্ত ইউরোপিয়ন এর মধ্য একটি ভয় কাজ করছিল যে পরবর্তীতে না জানি অন্য কোন দেশ জোন থেকে বের হয়ে যায়, এক দিকে ফ্রান্স অন্য দিকে ECB বন্ড ক্রয় থেকে সরে এসেছিল , সব মিলিয়ে কঠিন হুমকির মুখে ছিল গোটা ইউরোপিয়ান জোন, এতো কিছুর পর ও ইউরো যে তার হারানো অবস্থান ফেরাতে সক্ষম হয়েছে তার জোর করে বলার সময় এখনো হয়নি; যাহোক এই পর্বে দেখা আসা যাক টেকনিকেল এনালাইসিস Pathway তে আগামি এক সপ্তাহের EUR/USD সম্ভব্য টেডিং লাইন ; Weekly Closing Price: 1.1749 Weekly Resistance: 1.1759 EUR/USD 0.63% পজেটিভ পয়েন্টে ইউরো’র জন্য একটি সফল উইক ছিল; যা এই কারেন্সির জন্য সফলতম তৃতীয় সপ্তাহ; ২০+ দিনের ক্রমাগতিক উর্ধগতি কারেন্সিটি বর্তমান রেসিস্টেন্স ১.১৭৫৯ এ নিয়ে আসে; ক্রমাগত এই রেসিস্টেন্স এর ব্রেকিং EUR/USD কে ১.২০ তে নিয়ে যাওয়ার সংকেত দেয়। আর কারেক্টিভ ওয়ে উক্ত কারেন্সিকে ১.১৫৫০-৮০ পর্যন্ত একটা মাইনর রিভার্স এর সম্ভাবনা তৈরি করে; তাই এই কারেন্সিতে ট্রেডারদের জন্য সাজেশন হল এই মুহুরতে বড় কোন সিদ্ধান্তে না যাওয়া, EUR/USD একটা এক্সেসিভ রিভার্স পর্যন্ত চিন্তাভাবনা ঢালটা মুজবুত রাখবেন; Happy Trading ----
  2. আনুমানিক পিভট-পয়েন্ট লেভেলঃ ১.০৬০৫ সপ্তাহের দ্বিতীয়ভাগে মার্কেট এর ব্যাপক অস্থিতিশীলতার দরুন, EUR/USD সহ সব মেজর কারন্সিতে ব্যাপক পরিবর্তন হয় যার ৩০% ও এখনো কারেকশন। মুলত EUR/USD ১.১০৫০ ফ্ল্যাট লেভেল থেকে গত কয়েকমাসে এটাই হাই ভলাটিলিটি যা উক্ত কারেন্সিকে ১.০৬০০ পর্যন্ত নিয়ে আসে, মুলত এর একটি মুল কারন হল USD কারেন্সির অগ্রগামী গতিশীলতা অর্থাৎ Unemployment rate সুচক এর কমতিতে এই একটি পরিবর্তন লক্ষণীয় অন্যদিকে EUR এর ভারসাম্যহীনতা। তবে EUR/USD এর ক্রমাগত বেয়ারিশ প্রেসার শেষে এই পর্যায়ে মার্কেট কিছুটা স্থিতি বিরাজমান। তাই টেকনিক্যাল টূলস অনুসারে বর্তমান মার্কেট রেইট ১.০৬০০ এর আরো বেয়ারিশ বেগ নিয়ে যেতে পারে সর্বনিম্ন ১.০৫০০—৪৫০০ পর্যন্ত। বিপরীতভাবে নিচের চিত্র অনুসারে, বেয়ারিশ লেভেল (V) কারেকশন শেষে মার্কেট আবার ঘুরে দাড়ানোর চেস্টা করছে, বুলিশ প্রেসার ১.০৬০৫ ব্রেক লেভেল (ii) (iii) সম্পুর্ন হলে মার্কেট পুনরায় বায় প্রেসার লেভেল ১.১০০০ পর্যন্ত কাভার করার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই বায় অর্ডারের ক্ষেত্রে অবশ্যই উক্ত লেভেল অনুসারে বায় ফোর্স দেখে ট্রেড নিতে পারেন। ভিবিন্ন টেকনিক্যাল টুলস অনুসারে এই কারেন্সির আরো কিছু ট্রেডিং পজিশনঃ RSI(14) 41.098 Sell STOCH(9,6) 42.508 Sell MACD(12,26) -0.001 Sell ADX(14) 34.558 Sell Williams %R -80.137 Oversold CCI(14) -90.3395 Sell
  3. Greece Crisis & Dovish Message এর জন্য গত সপ্তাহের EUR/USD মোটামুটি একটি কনফিউসড উইক ছিল। তবে এই সপ্তাহে সেই উৎকণ্ঠার অবসান হবে বলে আশা করা হচ্ছে, কারন এই সপ্তাহে EUR v USD এর বেশ কিছু গুররুত্তপুর্ন ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টস রয়েছে যার ফলাফলে একটি স্থিরতা আসবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। মুলত এই সপ্তাহের Eurogroup Meetings, Greece Crisis stats, Germany’s ZEW কয়েকটি মূল নিউজ এই সপ্তহে এই কারেন্সির ট্রেডিং ধারনা পাল্টে দিতে পারে। Eurogroup and Leaders’ Summit on Greece: দিনের প্রথমভাবে শুরু হওয়া চলতি সপ্তাহের অতান্ত গুরুত্তপুর্ন এই মিটিং টি চলবে সারাদিন ব্যাপী, German Chancellor Angela Merkel and Greek Prime Minister Alexis Tsipras মিট করবেন তাদের চলমান ইসু নিয়ে যার ফলাফল লাস্ট মিনিট এর আগ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে এবং পরিবর্তন ঘটবে সেই কারেন্সির। তবে ফোরকাস্ট হিসেবে খুব বেশি কিছু আন্দাজ করা না গেলে ও গতকালের পাবলিশ হওয়া গ্রিসের ২ বিলিয়ন ডলারের ঘাটতি বলে দিচ্ছে EUR এর অবস্থা খুব ভালো নয়। ECB decision on Greek ELA: যেহেতু EUR জোন এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্রাইসিসে আছে Greek, তাই European Central Bank এর জোর প্রচেষ্টা থাকবে Greek কে ইমারজেন্সিতে হলে ও আর্থিক ঘাটতি পুরনে এগিয়ে আসা যার একটা ফলাফল বুধবারের মারকেটে পরিলক্ষিত হতে পারে। সব মিলিয়ে চলতি সপ্তহের মাঝামাঝি EUR এর একটা অবস্থান স্পষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা আছে। ফান্ডামেন্টাল নিউজগুলো যেহেতু আপেক্ষিক তাই এর আক্সিকিউশন ছাড়া পারত পক্ষে কিছুই স্পস্ট করা সম্ভব নয়। ঠিক অন্যভাবে টেকনিক্যাল এনালাইসিস আপনার ট্রেডিং লাইনে কিছুটা ভুমিকা রাখতে পারে, তাই দুই ভাবেই আপনাকে ট্রেডিং এ এগিয়ে যেতে হবে। উপরের চিত্র অনুসারে টেকনিকেল আনালাইসি জোন সাপোর্ট লেভেল ১.১০২৪ এবং রেসিসটেন্স লেভেল ১.১৬০০ আর বর্তমান মার্কেট লেভেল ১.১৩৪০। তাই লেভেল ১.১২৮০ এর লাওয়ার ব্রেকআউট EUR কে আরো সেল নির্ভর এবং লেভেল ১.১৪৪০ এর আপার ব্রেক আউট EUR কে পোঁছে দিতে পারে আরো শীর্ষে, যা ১.১৬০০ পর্যন্ত ঠেকতে পারে। তবে পুরো ঘটনাটি নির্ভর করছে European Central Bank কিভাবে Greek Crisis হেন্ডেল করে তার উপর। তাই এই সপ্তাহের ট্রেডেরদের অনুরোধ করা যাচ্ছে Greece Crisis এর পরিবর্তন বুঝে নতুন ট্রেডে এন্টার করতে, আর তা না পারলে প্রয়োজনে নতুন ট্রেড ওপেন না করতে, এতে করে অন্তত লাভ করতে না পারলে ও বড় ক্ষতির সম্মুখীন হবেন না।
  4. ট্রেন্ডঃ বুলিশ স্টেপ আপ লেভেলঃ R1 – 1.1332 R2 – 1.1407 R3- 1.1482 স্টেপ ডাউন লেভেলঃ S1- 1.1182 S2- 1.1107 S3- 1.1032 এনালাইসিসঃ গত সপ্তাহের EUR বেশ ভালো বুলিশ ফোর্সে USD কে টক্কর দিয়েছিল, এই সপ্তাহে ও সেই টক্কর অব্যহত থাকবে বলে আশা করা যাচ্ছে টেকনিক্যাল টার্ম অনুযায়ী তাই মনে হচ্ছে। তবে যারা EUR/USD তে ট্রেড করবেন তাদের বলছি মার্কেট শুরুতে ট্রেডে নেমে না পড়ে বরং একটু সময় নিয়ে ট্রেডে ঢুকলে বুদ্ধিমানের কাজ করবেন, অর্থাৎ আমি বলছি একটি কারেকশন লেভেলের পর উক্ত কারেন্সিতে বায় ট্রেড করে যেতে পারেন; কারন টেকনিক্যাল টুলস অনুসারে EUR/USD এই সপ্তাহে ১.১৫০০ পর্যন্ত যাওয়ার সম্ভাবনা রাখে। বিপরীত সিনারিও অনুসারে আসুন আরেকটু ভালোভাবে নিচের চার্ট অনুসারে দেখি কেমন খেইল দেখাতে পারে এই সপ্তাহের EUR v USD. নিচের চিত্র অনুযায়ী বর্তমান মার্কেট লেভেল থেকে S2 লেভেল ১.১১০৭ একটি বেয়ারিশ কারেকশন লেভেল রয়েছে, যার সম্ভব্য প্রতিফলনের পরেই মূল মার্কেট চিত্র দেখতে পারেন অথবা ট্রেন্ড পরিবর্তন হতে পারে। তাই সাপোর্ট লেভেল ২ এর আগে স্ট্রং কোন সিদ্ধান্ত না নেওয়াটাই হয়ত ভালো হবে। আবার বিপরীত সিনারিওতে R1 কে টাচ করে ও তা ঘটতে পারে। তবে R1 ১.১৩৩২ এর পর আপনি বায় ফোর্স ট্রেডের জন্য স্ট্রং হতে পারেন। এই সপ্তহে EUR/USD এর জন্য সর্বোচ্চ ক্রিটিকেল লেভেল হল ১.০৮০৭। যার ব্রেকআউট নিশ্চিত সেল মার্কেট তৈরি করবে। তাই সব গুলো লেভেল দেখে বুঝে ট্রেড করবেন। টেকনিক্যাল ইন্ডিকেটর অনুসারে EUR/USD মার্কেট ফোর্সঃ ইন্ডিকেটর মান অ্যাকশন RSI (14) - ৫৫ বুলিশ STOCH(9,6) ৭৮ বুলিশ MACD(12,26) ৮৬ বুলিশ ADX (14) ৩৫ বুলিশ
  5. EUR/USD এই পেয়ারটি প্রাইস লেভেল ১.১০৫০ – ১.১১০০ তে বেশ স্ট্রং একটি সাপোর্ট লাইন তৈরি করেছে। গত সপ্তাহের ট্রেডিং রেজাল্ট অনুসারে এই কারেন্সিটি নিম্নগামি হতে পারে মার্কেট কারেকশন পারেস্পেক্টিভ থেকে। বর্তমান পিভট পয়েন্ট লেভেল হল ১.১৪৪৬। তাই এই সপ্তাহে শর্ট ট্রেড হিসেবে পিভট পয়েন্ট লেভের নিচে ১.১০৯০ পর্যন্ত ট্রেডিং ফ্লো হতে পারে। বিপরীতভাবে আবার পিভট পয়েন্ট লেভেল ১.১৪৪৬ ব্রেকআউটে বায় ফ্লো বেড়ে প্রাইস ১.১৫০০ – ১.১৬০০ পর্যন্ত ট্রেডিং হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। চিত্রটি লক্ষ্য করুন, ৪ ঘণ্টার টাইম ফ্রেমে ৩য় লেভেল প্রাইস ১.১৪৪৬ এক্সটেন্ড করে ১.১৪৬৫ পর্যন্ত ট্রেডিং হয়েছে গত সপ্তাহে। এবং ৪র্থ লেভেল থেকে প্রাইস পুনরায় ডাউন শুরু হয়েছে। তাই এই সপ্তাহের মার্কেট যদি নিম্নমুখী থাকে এবং প্রাইস যদি ক্রিটিকেল লেভেল ১.১৪৪৬ ব্রেক না করে তাহলে প্রাইস ডাউন হয়ে ১.১১০০ পর্যন্ত ট্রেড হওয়ার সম্ভাবনা আশা করা যাচ্ছে। মুলত এই সপ্তাহের টেকনিক্যাল মার্কেট বিহেবিয়ার শর্ট তারপর ও পিভট এবং ক্রিটিকেল লেভেল ব্রেকআউটের দিকে খেয়াল রেখে ট্রেড করলে ভালো করবেন। আরো কিছু কারেন্সির এই সপ্তাহের ট্রেডিং হেল্পঃ GBP/USD ডাউনপ্রেসারে আছে এই কারেন্সিটিও, পিভট পয়েন্ট লেভেল ১.৫৮২০ । এই পেয়ারে কারেকশন লেভেলের নিচে সেল ট্রেডে ১.৫৫০০ পর্যন্ত প্রাইস পোঁছাতে পারে। বিপরীতভাবে পিভট লেভেল ব্রেকআউটে প্রাইস ১.৬০০০ পর্যন্ত সম্ভাবনা আছে। AUD/USD পিভট পয়েন্ট লেভেল ০.৭৯৫৮। মার্কেট ট্রেন্ড বায় প্রেসার। পিভট লেভেলের উপরের বায় করে .৮৪০০ পর্যন্ত প্রফিট নিতে পারেন এই কারেন্সিতে। বিপরীতভাবে সেল প্রেসার মার্কেটে .৭৫০০ পর্যন্ত ট্রেডিং রেঞ্জ তৈরি হতে পারে। USD/JPY এই কারেন্সিটর সেল কারেকশন মোটামুটি সম্পূর্ণ হয়ে গিয়েছে। তাই কারেন্সিটি বায় প্রেসারে ট্রেড করার সম্ভাবনা আছে। পিভট পয়েন্ট লেভেল ১১৮.৪৮। বায় ট্রেডিং এ পজেটিভ উক্ত কারেন্সিটি, ১২২.০০ পর্যন্ত বায়িং প্রেসার থাকতে পারে এই সপ্তাহে। আবার, সেল ডিরেকশনে মার্কেট প্রাইস ১১৭.০০ পর্যন্ত আস্তে পারে উক্ত কারেন্সির ট্রেডিং ভলিয়াম।
  6. EUR/USD কারেন্সির ধারাবাহিক পতন গত ১০ বছরের ফরেক্স মার্কেটকে ছাড়িয়ে গিয়েছে। এবং গত সপ্তাহের CHF এর প্রভাবে এক যুগের সর্বনিম্ন সাপোর্ট লেভেল এসে দাঁড়িয়েছে এই কারেন্সিটি। তবে এখানেই শেষ নেই এই সপ্তাহের কিছু ইভেন্ট এই কারেন্সির নতুন চিন্তার কারন হয়ে দাড়িয়েছে। তাই উক্ত কারেন্সির এই সপ্তাহের ইভেন্ট অনুসারে টেকনিক্যাল এনালাইসিসে মার্কেট ভলাটিলিটির ইমপ্যাক্টে এই কারেন্সির নতুন তারল্য কি হতে পারে তাই আলোচনার বিষয়। EUR/USD এর ক্রমগতিক অতিরিক্ত সেল ফোর্স ঠিক বোঝা যাচ্ছে না এই কারেন্সির পরবর্তী বটম লেভেল কোথায়। ধারাবাহিক ফলিং মোমেন্টাম লেভেল হাই ১০০ এ কিছুটা পুলব্যাক মনে হলে ও অতিরিক্ত সেল ফোর্সে তাও হচ্ছে না, তাই এই অবস্থায় EUR/USD কারেন্সি মোটামুটি ট্রেডারদের বেশ চিন্তিত করে তুলেছে কারন মেজরিটি ট্রেডার এই কারেন্সিতেই ট্রেড করে থাকেন। উপরের চিত্রে লক্ষ্য করলে বোঝা যায় কি পরিমান সেলিং ফোর্সে রয়েছে EUR/USD. তাই এখন প্রশ্ন একটাই কবে EUR/USD পুলব্যাক করবে বা আরো কি পরিমান সেল ফোর্স বাড়তে পারে? হ্যাঁ কিছু পাওয়া যাবে তার কিছু সঙ্কেত। ২২ জানুয়ারির European Central Bank’s meeting এবং ২৫ তারিখের Greek election এই কারেন্সির সেল ফোর্স আরো বাড়াবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। EUR/USD এর আরো সেল ফোর্সের পেছনে কিছু কারন রয়েছে; যেমন, বর্তমান EUR মুদ্রাস্পীতি তিব্রতায় যার ফলে কনজুমার এর কনজুমিং ফলিং প্রাইস ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রায় ০.২%। এবং গত সপ্তাহের সুইচ ন্যাশনাল ব্যাংক দ্বারা সুইচ ফ্রাঙ্ক এর সাথে ইউরো বন্ধকতা সব মিলিয়ে উক্ত কারেন্সির সেল ফোর্স আরো বাড়িয়ে তুলেছে। যার ফলে এই সপ্তাহে EUR/USD প্রাইস লেভেল ১.১৩৬০ পর্যন্ত আসার প্রবনতা রয়েছে। যার এই সেশন বিশদায়ন ১.১২০০ পর্যন্ত আসার অপেক্ষা রাখে না। তাই উক্ত কারেন্সিতে ট্রেডের ক্ষেত্রে বেশ সাবধানী হতে হবে বর্তমান মার্কেট তারল্য নীতিতে।