A H Royal

ফরেক্স ট্রেডিং এর বিভিন্ন সেশন বিস্তারিত (১ম অংশ)।

2 posts in this topic

ফরেক্স ট্রেডিং এর বিভিন্ন সেশন বিস্তারিত (১ম অংশ)।

 

বন্ধুরা, আপনারা সবাই জানেন যে, ফরেক্স মার্কেটে ট্রেড করার একটি অন্যতম সুবিধা হল এখানে সপ্তাহে ৫ দিন ( শনি ও রবিবার বাদ দিয়ে ) ২৪ ঘণ্টাই ট্রেড করা যায় বা মার্কেট খোলা থাকে যা পৃথিবীর অন্য কোনো স্টক মার্কেটে দেখা যায় না। ফরেক্স মার্কেটে প্রতিদিনের ট্রেডিংকে তিনটি সেশন এর মাধ্যমে ভাগ করা হয়। যেমন – ইউরোপিয়ান, আমেরিকান ও এশিয়ান সেশন। এগুলো আবার লন্ডন, নিউ ইয়র্ক ও টকিও+সিডনি সেশন নামেও পরিচিত। কারন ফরেক্সে লেনদেন কখনো এক জায়গা বা একয়ই সময়ে হয় না।

 

উদাহরণস্বরূপ – আমরা জানি আমেরিকার সাথে আমাদের ১১-১২ ঘন্টা সময়ের পার্থক্য অথ্যাত আমাদের যখন দিন তখন তাদের রাত, এখন আপনি একজন বাংলাদেশী আর আপনি চাইছেন বাংলাদেশে বসে আমেরিকার সাথে আপনার ব্যবসায়ীক কার্যক্রম পরিচালনা করতে, তাহলে আপনি কি আপনার অফিস আওয়ার ফলো করে তাদের সাথে ব্যবসা করতে পারবেন? উত্তরে অবশ্যই না, কারণ আপনি তাদের সাথে অফিসিয়াল ব্যবসা করতে হলে অবশ্যই তাদের অফিস আওয়ার ফলো করতে হবে ঠিক তেমনি তারাও আপনার অফিস আওয়ার ফলো করতে হবে। আশা করি এতক্ষণে ব্যপারটি আপনার কাছে পরিস্কার হয়ে গেছে।      

 

যখন লন্ডন ট্রেডাররা ট্রেডিং শেষ করে তখন নিউ ইয়র্ক ট্রেডাররা ট্রেডিং শুরু করে। আবার যখন নিউ ইয়র্ক ট্রেডাররা ট্রেডিং শেষ করে তখন সিডনি/টোকিও ট্রেডাররা ট্রেডিং শুরু করে।

 

বিভিন্ন ট্রেডিং সেশন এর বৈশিষ্ট্যঃ প্রত্যেকটা ট্রেডিং সেশনের আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট্য রয়েছে। আবার যখন কোন নির্দিষ্ট দেশের সেশন চালু থাকবে তখন ঐ দেশের কারেন্সির লেনদেন বেশি পরিমানে হয়ে থাকে এটাই স্বাভাবিক

 

উদাহরণস্বরূপ - যদি এশিয়ান সেশন খোলা থাকে তবে জাপান এর কোম্পানি গুলো অন্যান্য দেশের সাথে লেনদেন এ লিপ্ত হবে । ফলে জাপান এর কারেন্সি ইয়েন এর লেনদেন বেশি হবে, আবার যখন ইউরোপিয়ান সেশন খোলা থাকবে তখন ইউরোপ এর বিভিন্ন দেশের কোম্পানি গুলো অন্যান্য দেশের সাথে লেনদেন এ লিপ্ত হবে। ফলে ইউরোপ এর কারেন্সি ইউরো এর লেনদেন বেশি হবে। আবার যখন ইউরোপিয়ান সেশন বন্ধ হয়ে যায় তখন ঐ দেশের কোম্পানি গুলো লেনদেন কমিয়ে দে, ফলে ইউরো এর লেনদেন কমে যায়।

সুতরাং একটি নির্দিষ্ট দেশের কারেন্সির লেনদেন, মুভমেন্ট এর ধরণ একটি নির্দিষ্ট সেশন খোলা বা বন্ধের জন্য প্রভাবিত হতে পারে।

 

ফরেক্স ট্রেডিং সেশন:

নিচের চিত্রটি GMT কে অনুসরণ করে সামার ও উইন্টার সিজনে বিভিন্ন সেশন এর খোলা ও বন্ধের সময় দেখানো হল

post-1088-0-93808700-1409650616_thumb.pn

 

উপরের টেবিলটিতে  GMT কে অনুসরণ করে বিভিন্ন ট্রেডিং সেশনের সময় প্রদর্শন করা হয়েছে। আপনি আপনার প্রয়োজনে এর সাথে আপনার অবস্থান অনুযায়ী সময় যোগ/বিয়োগ করে ঠিক করে নি

 

আপনারা জানেন যে, কোন ট্রেডিং সেশনই এক সপ্তাহ ধরে খোলা থাকে না। ট্রেডিং সপ্তাহ সিডনি সেশন দিয়ে শুরু হয় এবং শেষ হয় নিউ ইয়র্ক সেশন এর মাধ্যমে। বিশ্বে আপনার অবস্থান এর উপর নির্ভর করে দিন ও সময় আলাদা হয়। এখন আপনি যদি জাপান এ বাস করেন তবে দিন শুরু হবে সোমবার সকাল থেকে। আবার আপনি যদি ইউরোপ এ বাস করেন তবে দিন শুরু হবে রবিবার বিকেল থেকে।

 

সেশনগুলোর বৈশিষ্ট্য:

সেশন ভেদে প্রত্যেকটি ট্রেডিং সেশনের আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তাহলে আসুন জেনে নেই ট্রেডিং সেশনগুলোর যাবতীয় বৈশিষ্ট্যসমুহঃ  

 

এশিয়ান সেশনঃ

post-1088-0-42070300-1409651112_thumb.pn

এশিয়ান সিডনি সেশন বর্তমানে শুরু হয় ২ GMT তে। শুধুমাত্র সিডনি সেশন এ লেনদেন কম এর ফলে প্রাইস এর উঠা নামা কম। তবে 00 :00 GMT তে টকিও সেশন খুলে গেলে লেনদেন এর পরিমান বেড়ে যায়। US & UK এর তুলনাই এশিয়ান ও অস্ট্রেলিয়ার মার্কেট ছোট হওয়াতে এ সময়ে লেনদেন কম হয়ে থাকে আর এ সম স্প্রেড এর পরিমাণও একটু বেশি হয়।

 

এশিয়ান সেশন এ Aud & Nzd ডলার এবং জাপানিজ Yen এর লেনদেন বেশি পরিমানে হয়। সুতরাং এশিয়ান সেশন এ বেশি ট্রেডেবল কারেন্সিগুলো হল - AUD/USD, AUD/JPY, AUD/NZD, JPY/USD, NZD/JPY NZD/USD.

 

যেহেতু এশিয়ান সেশনে লেনদেনের পরিমান কম ও স্প্রেড এর পরিমান বেশী হয়ে থাকে তাই আমি মনে করি এ সেশনে মোটামুটি লাভ নিশ্চিত না জেনে ট্রেড/অর্ডার না দেওয়াই ভাল। আর এ সেশনে সফল ট্রেড করতে আপনাকে বেশীরভাগ সময়ই ভোর রাত/ভোরে ঘুম থেকে উঠতে হবে আর যদি ভোরে উঠতেই না পারেন তাহলে রাত জেগে বসে থাকতে হবে, তাই এ সেশনে ট্রেড করতে বা করার জন্য সুদৃঢ় চিন্তা-ভাবনা করে অগ্রসর হউন।  

 

অন্য সেশনগুলো সম্পর্কে জানতে চোখ রাখুন আগামী দিনের পোষ্টে.........    

 

ধন্যবাদ।

 

A H Royal, salmansam and Mhafiz™ like this

Share this post


Link to post
Share on other sites

ধন্যবাদ সুন্দর ভাবে বিভিন্ন ট্রেডিং সেশন আলোচনা করার জন্য ! নতুন পুরাতন আশা করছি ফরেক্স ট্রেডিং সম্পর্কে এবং ভিবিন্ন সেশনে ট্রেডিং সুবিধা অসুবিধা সম্পর্কে জাদের পুর্ন ধারনা নাই কিংবা জানেন না তারা অনেক উপকৃত হবেন, এবং আগের চেয়ে আরো ভালো ট্রেডিং করতে পারবেন। আবারো ধন্যবাদ রয়েল ভাই এবং বিডিফরেক্সপ্রো' 

Mhafiz™ likes this

Share this post


Link to post
Share on other sites

টপিকটিতে মন্তব্য করতে সাইন ইন করুন অথবা নতুন একাউন্ট করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই মেম্বার হতে হবে

একাউন্ট করুন

খুব সহজে একাউন্ট করুন


নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন

সাইন ইন

ইতিমধ্যে একাউন্ট করেছেন ? সাইন ইন করুন


এখনি সাইন ইন করুন

  • Similar Content

    • By A H Royal
      ফরেক্স ট্রেডিং এর বিভিন্ন সেশন বিস্তারিত (শেষ অংশ)।
       
      বন্ধুরা, গতকাল আমরা ফরেক্স ট্রেডিং এর বিভিন্ন সেশনের বিস্তারিত আলোচনার প্রথম অংশ জেনেছিলাম আর আজকে জানবো এর শেষ অংশ। তাহলে আসুন জেনে নেই ফরেক্স ট্রেডিং এর বিভিন্ন সেশনের শেষ অংশ......
       
      ইউরোপিয়ান সেশনঃ
      ৮ GMT / বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টায় লন্ডন সেশন শুরু হয়। যখন টকিও সেশন এর(বর্তমানে) ২ ঘণ্টাই বেচে থাকে। এ সময় বিশাল অংকের ট্রেডার এ মার্কেট এ অংশগ্রহন করে এবং এশিয়ান সেশন এর সাথে তুলনা করতে গেলে এই মার্কেট এ বিশাল মুভমেন্ট হয়ে থাকে।
       

       
      অনেক DAY ট্রেডার এশিয়ান সেশন বন্ধের সময় তাদের ট্রেড গুলো ক্লোজ করে দেয়, যার ফলে ট্রেডাররা লন্ডন সেশন এ ট্রেডন ওপেন করার সুযোগ পেয়ে যায়। যদিও আমাদের ব্রোকার গুলোর মাধ্যমে আমরা যেকোনো সময় ট্রেড ওপেন ও ক্লোজ করে থাকি।
      ইউরোপিয়ান সেশনে সকল পেয়ারেই বেশীরভাগ সময়ই ভাল মুভমেন্ট লক্ষ্য করা যায়। আবার এই সময় স্প্রেড টাও কম থাকে । সকল সেশন এর মধ্যে লন্ডনই সবচেয়ে লিকুইড। লিকুইড এর দিক দিয়ে লন্ডন ৩৮% , নিউ ইয়র্ক ১৭ % , এশিয়ান ৬ % । তাই অনেক ট্রেডার তাদের বেশীরভাগ ট্রেড এ সেশনে করে থাকেন।
       
      নিউ ইয়র্ক সেশনঃ
      ১৩ GMT / বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টা নিউইয়র্ক সেশন ওপেন হয়।
       

       
      এ সময় লন্ডন ও নিউ ইয়র্ক সেশন একই সাথে খোলা থাকে । ফলে এ সময় মার্কেট এ ট্রেডার এর সংখ্যা আসলে অনেক বেশি থাকে। ফলে প্রাইস মুভমেন্ট ও বেশি হয়ে থাকে।
      ১৭ GMT তে লন্ডন সেশন ক্লোজ হয়ে গেলে শুধু নিউ ইয়র্ক সেশন খোলা থাকে । আবার নিউ ইয়র্ক সেশন ক্লোজ হওয়ার পর নতুন দিন শুরু হবে সিডনিকে দিয়ে।
      নিউ ইয়র্ক সেশন এ এশিয়ান সেশন এর চেয়ে বেশি ট্রেডার মার্কেট এ বর্তমান থাকে। যদিও লন্ডন সেশন ক্লোজ হওয়ার পর অনেক ট্রেডার তাদের পজিশন বা ট্রেড গুলো ক্লোজ করে দেয়। এভাবেই একটির পর একটি মার্কেট ক্রমান্বয়ে ওপেন হয় এবং ক্লোজ হয়।
       
      সেশন ওভারল্যাপঃ
      দুটি সেশন এক সাথে খোলা থাকলে একে সেশন ওভার ল্যাপ বলা হয়ে থাকে । টকিও ও লন্ডন এর মাঝে(বর্তমানে) ২ ঘণ্টা এবং নিউ ইয়র্ক ও লন্ডন এর মাঝে ৪ ঘণ্টা সেশন ওভার ল্যাপ হয়ে থাকে। এ সময় সবচেয়ে বেশি ট্রেডার মার্কেট এ উপস্থিত থাকে । এ সময় মার্কেট খুব লিকুইড থাকে বলে ট্রেডাররা বেশি পরিমানে ট্রেড করে থাকে। আবার এ সময় স্প্রেড এর পরিমাণও সবচেয়ে কম হয়ে থাকে। এ সকল কারনে এ সময়টাকে ট্রেড করার জন্য উত্তম বলা যেতে পারে এবং অধিকাংশ ট্রেডার এ সময়টাকে তাদের ট্রেডের প্রকৃত সময় হিসেবে নির্ধারণ করে থাকেন।
       
      কিছু নির্দিষ্ট সময়ে সতর্কতা:
      কিছু কিছু দিন US, UK এবং Europe এর ব্যাংকগুলো ছুটিতে থাকে। এ সময় ট্রেড করা থেকে বিরত থাকাই ভাল। কারন এ সময় মার্কেট মুভমেন্ট ভাল হয় না। এ সময় মার্কেট কম লিকুইড থাকে এবং এ সময় বেশি ট্রেডার মার্কেট এ অংশগ্রহণ করে না। আবার এ সময় নিউজগুলো বেশীরভাগ সময় মার্কেটে বিশাল প্রভাব ফেলে থাকে। এ সময়ে নিউজ এর প্রভাবে মার্কেট প্রাইচ যে কোন দিকে  বিশাল মুভ করে আবার খুব তাড়াতাড়ি সেই প্রাইচ এ ফিরে আসে।
       
      সুতরাং যেকোনো গুরুত্বপূর্ণ নিউজ রিলিজ হওয়ার আগেই সতর্ক হতে হবে বা এই বিপদজনক সময়ে ট্রেড করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
      এবার আপনি , ভেবে দেখুন কোন সময় আপনার জন্য সুবিধা জনক। অনেকেই স্পেশাল কিছু পেয়ারে ট্রেড করতে পছন্দ করেন , যেমন ধরা যাক AUDJPY, তবে  হ্যাঁ  New York Session এসব পেয়ারে ট্রেড দিলে ভাল ফলাফল নাও পেতে পারেন। আপনার পছন্দের পেয়ারে দেখে নিন কোন সময় ভাল মুভমেন্ট হয় সেই সময় ট্রেড করুন। তবে সবচেয়ে ভাল হয় আপনি যে পেয়ারে ট্রেড করতে চাচ্ছেন সে পেয়ারের দুটি কারেন্সির একটি কারেন্সির মার্কেটও খোলা আছে কিনা, আর যদি দেখেন যে উক্ত পেয়ারের উভয় কারেন্সির মার্কেট বন্ধ তাহলে ওই পেয়ারে ট্রেড করা থেকে বিরত থাকুন।
       
      আশা করি পোষ্টির দ্বারা ট্রেডিং সেশন সম্পর্কে বিস্তারিত বুঝেছেন আর যদি কোনো জায়গায় না বুঝে থাকেন তাহলে কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন, আপনাকে সঠিক তথ্য দেওয়ার জন্য চেষ্টা করবো।    
       
      ধন্যবাদ।