Jump to content

Bdforexpro - ফরেক্স সংক্রান্ত আলোচনা,ফরেক্স শিক্ষা, ফরেক্স ট্রেডিং এবং এনালাইসিসের উন্মক্ত এবং অনন্য স্থান। এই ফোরামে রেজিস্ট্রেশন সম্পূর্ণ ফ্রী। পোস্ট এর পূর্বে অনুগ্রহ করে ফোরাম নিতিমালা গুলো পড়ে, বুঝে পোস্ট করুন। ধন্যবাদ;

GBPUSD মার্কেট আউটলুক জুলাই ২৮ থেকে আগস্ট ০১ তারিখ পর্যন্ত।


Recommended Posts

GBPUSD মার্কেট আউটলুক জুলাই ২৮ থেকে আগস্ট ০১ তারিখ পর্যন্ত

 

ট্রেডপ্রিয় বন্ধুরা, GBPUSD পেয়ারটি বিগত সপ্তাহে সেল এ ১.৬৯৭৬ রেট এ মার্কেট ক্লোজ করে। যদিও পেয়ারটির মার্কেট ট্রেন্ড দৈনিক চার্ট এ এখন সেল ইন্ডিকেট করছে তবে তার আগে বাই এ কিছুটা কারেকশন করতে পারে। এ সপ্তাহে পেয়ারটি সেল এর দিকে ১.৬৮২০/১.৬৭০০ এবং বাই এর দিকে গেলে ১.৭১০০/১.৭২০০ পর্যন্ত যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। আর যদি USD এর নিউজগুলো অত্যাদিক ভালো হয় তাহলে পেয়ারটির মার্কেট ১.৬৭০০ সাপোর্ট লেভেলে যেতে সক্ষম হবে।  

 

যাইহোক, এ সপ্তাহে পেয়ারটির ঊর্ধ্বগতি নির্ভর করবে Manufacturing PMI. নিউজটির উপর আর সেলের গতি নির্ভর করবে USD এর উপর। তবে GBP থেকে USD এর নিউজগুলো বেশী ইপেক্টিভ হবে বলে আশা করা যায়।       

তাই আপনাদের যেন উক্ত পেয়ার এ ট্রেড করতে সুবিধা হয় সে জন্য চিত্রের সাহায্যে উক্ত কারেন্সির সাপোর্ট, রেসিস্টেন্স, মার্কেট ট্রেন্ড এবং একটা ট্রেড আইডিয়া শেয়ার করলাম।

 

GBPUSD ডেইলি চার্ট এ মার্কেট ট্রেন্ড চিত্রঃ

 

post-1088-0-09091400-1406539271_thumb.pn

 

GBPUSD ডেইলি চার্ট এ সাপোর্ট রেসিস্টেন্স ও ট্রেড আইডিয়া চিত্রঃ

 

post-1088-0-20711600-1406539301_thumb.pn

 

পিভট পয়েন্টঃ ১.৬৯৮০।

রেসিসটেন্স সমুহঃ ১.৭০১৩, ১.৭০৫০, ১.৭০৮২, ১.৭১১৩ ও স্ট্রং রেসিসটেন্স ১.৭১৮০

সাপোর্ট সমুহঃ ১.৬৯৬০, ১.৬৯২১, ১.৬৮৯৯, ১.৬৮৫১, ১.৬৮২৪ ও স্ট্রং সাপোর্ট ১.৬৭৮০

 

GBPUSD - পেয়ারটির এ সপ্তাহের হাই ইমপ্যাক্ট নিউজগুলো জেনে নিনঃ

 

২৮ই জুলাই সোমবার –  মার্কেট ওপেনের এই দিনে USD এর একটি হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ ছাড়া তেমন কোনো নিউজ নেই। সুতারাং এ দিন উক্ত পেয়ারটি ট্রেডেবল থাকার সম্ভাবনা আছে। তবে এ দিন সন্ধ্যার আগে বিশেষ করে USD এর নিউজটি পাবলিশ হওয়ার আগে উক্ত পেয়ারে ট্রেড করা থেকে বিরত থাকাই ভালো। 

  

 রাত ৮.০০মিনিট           USD   Pending Home Sales m/m

 

২৯ই জুলাই মঙ্গলবার –  মার্কেট ওপেনের দ্বিতীয় দিনেও শুধুমাত্র USD কারেন্সির একমাত্র নিউজটিই উক্ত পেয়ারের মার্কেট মুবমেন্টের একমাত্র ভরসা।   

 

রাত ৮.০০মিনিট            USD   Existing CB Consumer Confidence  

 

৩০ই জুলাই বুধবারএ দিনেও  উক্ত পেয়ারের মার্কেটে ভালো মুবমেন্ট থাকতে পারে কারণ এ দিন USD কারেন্সিতে দুটি হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ আছে। এতে পেয়ারটি এ দিন ট্রেডেবল থাকার সম্ভাবনা বেশী।

 

সন্ধ্যা ৬.১৫মিনিট           USD   ADP Non-Farm Employment Change

সন্ধ্যা ৬.১৫মিনিট           USD   Advance GDP q/q

 

৩১ই জুলাই বৃহস্পতিবার –  সপ্তাহের এই দিনটিতে পেয়ারটির মেজর কারেন্সিতে দুটি হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ আছে। তাই এ দিন পেয়ারটি ট্রেডেবল থাকার সম্ভাবনা খুব বেশী। বিশেষ করে USD এর FOMC Statement নিউজটি যদি মার্কেট বান্ধব হয় তাহলে পেয়ারটি ভালো মুবমেন্ট ঘটাতে পারে আর এ সাথে যোগ হতে পারে Unemployment Claims নিউজটির ফলাফলও। তাই এ দিন পেয়ারটিতে সাবধানে ট্রেড করুন।

 

রাত ১২.০০মিনিট( AM) USD   FOMC Statement

সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট           USD   Unemployment Claims

 

০১লা আগস্ট শুক্রবার মার্কেট ক্লোজিং এর এ দিনে USD এবং GBP এর নিউজগুলো GBPUSD পেয়ারটিকে চাঙ্গা করে তুলতে পারে তবে এ সবই নির্ভর করবে এ্যাকচুয়্যল নিউজের উপর।

 

দুপুর ২.৩০মিনিট           GBP   Manufacturing PMI

সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট           USD   Non-Farm Employment Change

সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট           USD   Unemployment Rate

রাত ৮.০০মিনিট            USD   ISM Manufacturing PMI

 

উপরোক্ত নিউজগুলো দেখেই বুঝতে পারছেন যে এ সপ্তাহে পেয়ারটির USD কারেন্সিতে অনেক নিউজ রয়েছে যার বিপরীতে GBP কারেন্সিতে সপ্তাহের শেষ দিনে শুধুমাত্র Manufacturing PMI নিউজটি রয়েছে, USD কারেন্সির এ্যকচু্য্যাল নিউজ পজিটিভ হলে উক্ত পেয়াটির মার্কেট ট্রেন্ড এ সপ্তাহে সেল এ থাকবে।

 

এই সপ্তাহে আপনি উক্ত কারেন্সিতে যেভাবে ট্রেড করবেনঃ প্রথম সাপোর্ট ক্রস করলে-

১.৬৯৫৫ তে সেল ট্রেড করুন। এক্ষেত্রে স্টপ লস দিন ১.৭০১৫ আর টেক প্রফিট দিন ৮০-১৩০ পিপ্স।

আর প্রথম রেসিস্টেন্স ক্রস করলে ১.৭০১৫ এ বাই ট্রেড করুন, স্টপ লস ১.৬৯৭৫ টেকপ্রফিট ৫০-৭০পিপ্স দিন।

১.৭০৬০-১.৭০৮০ এর মধ্যে সেল ট্রেড করুন, স্টপ লস ১.৭১২০ টেক প্রোফিট ৯০-১৫০ পিপ্স দিন।

 

উপরোক্ত ট্রেডগুলোর টেক প্রফিট ও স্টপলস আপনি চাইলে আপনার মত করে দিতে পারেন। তবে স্টপলস এর ক্ষেত্রে অবশ্যই সাপোর্ট ও রেসিস্টেন্স দেখে দিন।  

উপরোক্ত যে কোনো অর্ডার মেক করার পর যদি দেখেন যে আপনার ট্রেড প্রফিটে আছে কিন্তু নিউজ আপনার ট্রেড এর বিপরীতে তাহলে ঐই ট্রেডটি ক্লোজ করে দিবেন। ট্রেড এ উপস্থিত না থাকলে একটির বেশী পেন্ডিং অর্ডার দিবেন না। যদি আপনার একটি অর্ডার নিয়ে নেয় তাহলে সে অর্ডারটি ক্লোজ না করে আরেকটি অর্ডার দিবেন না। বিশেষ করে বাই সেল করে ট্রেড লক করবেন না। আর যারা স্ক্যাল্পিং করেন তারা অবশ্যই ট্রেন্ড এবং নিউজ ফলো করবেন। হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ আওয়ার এ দেখে ও বুঝে ট্রেড করবেন। এই এ্যনালাইসিস সাপ্তাহিক ট্রেডাররা ফলো  করলে ভালো, তবে ডেইলি ট্রেডাররা লট সাইজ আনুপাতিক হারে কমিয়ে করতে পারেন।

 

সবাইকে পবিত্র ঈদ-উল ফিতর এর শুভেচ্ছা।

 

ধন্যবাদ সবাইকে।

 

বিঃ দ্রঃ ফরেন এক্সচেঞ্জ একটি হাই রিস্ক লেভেল ট্রেডিং মার্কেট যা সকল ইনভেস্টর বা ট্রেডারদের জন্য যথাযোগ্য নয়। কারেন্সি ট্রেডিং এ ট্রেডারদের ট্রেড এর যে কোনরূপ পরিবর্তন ট্রেডাররা নিজ দায়িত্বে বহন করবে। সে জন্য বিডিফরেক্সপ্রো কোনো প্রকার দায়ী থাকিবে না।

Link to comment
Share on other sites

টপিকটিতে মন্তব্য করতে সাইন ইন করুন অথবা নতুন একাউন্ট করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই মেম্বার হতে হবে

একাউন্ট করুন

খুব সহজে একাউন্ট করুন

নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন

সাইন ইন

ইতিমধ্যে একাউন্ট করেছেন ? সাইন ইন করুন

এখনি সাইন ইন করুন
 Share

  • Similar Content

    • By A H Royal
      GBPUSD মার্কেট আউটলুক আগস্ট ২৫ থেকে আগস্ট ২৯ তারিখ পর্যন্ত।
       
      ট্রেডপ্রিয় বন্ধুরা, GBPUSD পেয়ারটি বিগত সপ্তাহে সেল এ ১৭৫পিপ্স গেইন করে ১.৬৫৭১ রেট এ মার্কেট ক্লোজ করে এবং আজকে ছোট-খাটো একটি উইন্ডো গ্যাপ দিয়ে মার্কেট ওপেন করে। পেয়ারটির মার্কেট ট্রেন্ড বর্তমানে দৈনিক ও ৪ঘন্টার চার্ট এ এখনো সেল ইন্ডিকেট করছে তবে এ সপ্তাহে GBP কারেন্সির কোন হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ নেই অপরদিকে USD কারেন্সির কয়েকটি হাই ইম্প্যাক্ট নিউজ রয়েছে। তাই এ সপ্তাহে পেয়ারটি ট্রেডেবল থাকবে এবং আশা করি সেলে-ই থাকবে যদি USD এর নিউজগুলো পজিটিভ হয়।
       
      যাইহোক, এ সপ্তাহে পেয়ারটি সেল এর দিকে ১.৬৪৬০/১.৬৩৩৮ এবং বাই এর দিকে গেলে ১.৬৬০০/১.৬৭০০ পর্যন্ত যাওয়ার সম্ভাবনা আছে।
       
      তাই আপনাদের যেন উক্ত পেয়ার এ ট্রেড করতে সুবিধা হয় সে জন্য চিত্রের সাহায্যে উক্ত কারেন্সির সাপোর্ট, রেসিস্টেন্স, মার্কেট ট্রেন্ড এবং একটা ট্রেড আইডিয়া শেয়ার করলাম।
       
      GBPUSD ৪ঘন্টার চার্ট এ মার্কেট ট্রেন্ড চিত্রঃ
       

       
      GBPUSD ডেইলি চার্ট এ সাপোর্ট রেসিস্টেন্স ও ট্রেড আইডিয়া চিত্রঃ
       

       
      দৈনিক চার্টে পিভট পয়েন্টঃ ১.৬৫৫৩।
       
      রেসিসটেন্স সমুহঃ ১.৬৬০০, ১.৬৬৬৭, ১.৬৭১৬, ১.৬৭৬৮, ১.৬৮২৩ ও স্ট্রং রেসিসটেন্স ১.৬৯২০।
       
      সাপোর্ট সমুহঃ ১.৬৫৩৫, ১.৬৪৯৭, ১.৬৪৫৯, ১.৬৪২৩, ১.৬৩৩৭ ও স্ট্রং সাপোর্ট ১.৬২৫১।
       
      GBPUSD - পেয়ারটির এ সপ্তাহের হাই ইমপ্যাক্ট নিউজগুলো জেনে নিনঃ
       
      ২৫ই আগস্ট সোমবার –  মার্কেট ওপেনের এ দিনে উক্ত পেয়ারের শুধুমাত্র USD কারেন্সিতে একটি নিউজ রয়েছে তাছাড়া এ দিন GBP কারেন্সির ব্যাংক ছুটির দিন, তাই এ দিন উক্ত পেয়ারটিতে সাবধানে ট্রেড করুন।    
       
      রাত ১২.০০মিনিট                 USD   New Home Sales
       
      ২৬ই আগস্ট মঙ্গলবার – মার্কেট ওপেনের দ্বিতীয় দিনেও উক্ত পেয়ারের শুধুমাত্র USD কারেন্সিতে দুটি নিউজ রয়েছে, উক্ত নিউজ দুটির ফলাফল আশা করি পেয়ারটির মার্কেটকে ট্রেডেবল করে তুলবে।  
       
      সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট                 USD   Core Durable Goods Orders m/m
      রাত ৮.০০মিনিট                   USD   CB Consumer Confidence
       
      ২৭ই আগস্ট বুধবার – সপ্তাহের এই দিনে পেয়ারটিতে হাই ইমপ্যাক্ট এর কোনো নিউজ নেই, তাই এ দিন টেকনিক্যাল এ্যনালাইসিস দেখে বুঝে ট্রেড করুন।
       
      ২৮ই আগস্ট বৃহস্পতিবার –  সপ্তাহের এই দিনে পেয়ারটিতে হাই ইমপ্যাক্ট এর নিউজ সংখ্যা বেশী। তবে নিউজগুলো শুধুই USD কারেন্সির তাই উক্ত নিউজগুলোর এ্যকচুয়্যাল রিপোর্ট যদি ভালো হয় তাহলে পেয়ারটি সেলে-ই থাকবে আর যদি একটি ভাল অন্যটি খারাপ হয় তাহলে এ দিন পেয়ারটিতে প্রফিটেবল স্ক্যাল্পিং করা যাবে।   
       
      সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট          USD   Prelim GDP q/q
      সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট          USD   Unemployment Claims
      রাত ৮.০০মিনিট            USD   Pending Home Sales m/m
       
       
       
      ২৯ই আগস্ট শুক্রবার –  মার্কেট ক্লোজিং এর এ দিনে পেয়ারটিতে হাই ইমপ্যাক্ট এর কোনো নিউজ নেই, তাই এ দিন টেকনিক্যাল এ্যনালাইসিস দেখে বুঝে ট্রেড করুন।
       
      উপরোক্ত নিউজগুলো দেখেই বুঝতে পারছেন যে এ সপ্তাহে পেয়ারটির GBP কারেন্সিতে কোনো হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ নেই, তাই যদি এ সপ্তাহে USD কারেন্সির নিউজগুলো অত্যাধিক ভালো হয় তাহলে পেয়ারটি সেলে-ই থাকবে অপর দিকে USD এর নিউজগুলো অত্যাধিক খারাপ হলে পেয়ারটি এ সপ্তাহেও বাই কিছুটা কারেকশন করবে। তবে আমার মতে পেয়ারটি এ সপ্তাহেও সেলে থাকবে।   
       
      এই সপ্তাহে আপনি উক্ত কারেন্সিতে যেভাবে ট্রেড করবেনঃ
      (১) প্রথমেই ১.৬৫৬৫ মুল্যের উপরে প্রথম রেসিস্টেন্সের নিচে যেকোনো মুল্যে সেল ট্রেড করুন, স্টপ লস ১.৬৬১০ টেকপ্রফিট ৮০-১১০পিপ্স দিন।
      (২) মার্কেট যদি প্রথম রেসিস্টেন্স ক্রস করে বাই যায় তাহলে ১.৬৬১০ এ বাই ট্রেড করুন, এক্ষেত্রে স্টপ লস দিন ১.৬৫৫৫ আর টেক প্রফিট দিন ৫০-৮০ পিপ্স।
      (৩) মার্কেট যদি সেল এ যায় তাহলে প্রথম সাপোর্ট ক্রস করলে ১.৬৫২৫ মুল্যে সেল এন্ট্রি দিন আর স্টপ লস ১.৬৫৭৫ টেক প্রফিট ৬০-৯০দিন।
      (৪) এবং ১.৬৪৬০ থেকে ১.৬৪২০ এর মধ্যে যেকোনো মুল্যে বাই ট্রেড এ এন্ট্রি দিন আর স্টপ লস ১.৬৩৮৫ এবং টেক প্রফিট ১২০-১৫০পিপ্স দিন (যদি এ ট্রেডটিতে এন্ট্রি হয় তাহলে টেক প্রফিটের জন্য আগামী সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতে পারে)।
       
      উপরোক্ত ট্রেডগুলোর টেক প্রফিট ও স্টপলস আপনি চাইলে আপনার মত করে দিতে পারেন। তবে স্টপলস এর ক্ষেত্রে অবশ্যই সাপোর্ট ও রেসিস্টেন্স দেখে দিন।  
       
      উপরোক্ত যে কোনো অর্ডার মেক করার পর যদি দেখেন যে আপনার ট্রেড প্রফিটে আছে কিন্তু নিউজ আপনার ট্রেড এর বিপরীতে তাহলে ঐই ট্রেডটি ক্লোজ করে দিবেন। ট্রেড এ উপস্থিত না থাকলে একটির বেশী পেন্ডিং অর্ডার দিবেন না। যদি আপনার একটি অর্ডার নিয়ে নেয় তাহলে সে অর্ডারটি ক্লোজ না করে আরেকটি অর্ডার দিবেন না। বিশেষ করে বাই সেল করে ট্রেড লক করবেন না। আর যারা স্ক্যাল্পিং করেন তারা অবশ্যই ট্রেন্ড এবং নিউজ ফলো করবেন। হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ আওয়ার এ দেখে ও বুঝে ট্রেড করবেন। এই এ্যনালাইসিস সাপ্তাহিক ট্রেডাররা ফলো  করলে ভালো, তবে ডেইলি ট্রেডাররা লট সাইজ আনুপাতিক হারে কমিয়ে করতে পারেন।
       
      ধন্যবাদ সবাইকে।
       
      বিঃ দ্রঃ ফরেন এক্সচেঞ্জ একটি হাই রিস্ক লেভেল ট্রেডিং মার্কেট যা সকল ইনভেস্টর বা ট্রেডারদের জন্য যথাযোগ্য নয়। কারেন্সি ট্রেডিং এ ট্রেডারদের ট্রেড এর যে কোনরূপ পরিবর্তন ট্রেডাররা নিজ দায়িত্বে বহন করবে। সে জন্য বিডিফরেক্সপ্রো কোনো প্রকার দায়ী থাকিবে না।
    • By A H Royal
      কেন ট্রেন্ড সত্যিই আপনার বন্ধু।
       
      বন্ধুরা, ট্রেডিং বিশ্বে একটি খুব জনপ্রিয় ও প্রচলিত কথা আছে “ট্রেন্ড আপনার বন্ধু”। যারা ভাল ট্রেডার আছেন আপনি তাদের মুখ থেকে এ শব্দটি অন্ত্যত একবার হলেও নিশ্চয়ই শুনেছেন। ট্রেন্ডলাইন হলো সফল ফরেক্স ট্রেডারদের ট্রেড করার জন্য সবচেয়ে বড় কৌশল। আপনি যতই ইন্ডিকেটর ব্যবহার করেননা কেন আপনি যদি ট্রেন্ডলাইন না বুঝেন তাহলে সফল ট্রেডার হওয়া আপনার জন্য অনেক কঠিন হবে। ট্রেড এর ক্ষেত্রে ট্রেন্ড লাইন অতিব গুরুত্বপূর্ণ কেন এটা অনেকেই জানেন না বা বুঝেন না। আর যারা ট্রেন্ড লাইন বুঝে ট্রেড করে তারা কিভাবে করে এবং তাদের সফলতাই বা কেমন? আজকের আর্টিকেল এ সংক্ষিপ্তভাবে আপনাদেরকে তাই জানাবো।
          
      ট্রেন্ড লাইন দেখে ট্রেড এ এন্ট্রি দেওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই দৈনিক বা ৪ঘন্টার চার্ট অনুসরণ করতে হবে নতুবা আপনার ট্রেন্ড লাইন ট্রেড পদ্ধতিতে নিশ্চিত ভুল হতে পারে।
       
      কিভাবে হাইয়ার টাইম ফ্রেমে ট্রেন্ড ও প্রাইচ এ্যকশনের মাধ্যমে লো স্টপ লস দিয়ে হাই প্রফিটের জন্য ট্রেড এ এন্ট্রি দিবেন চিত্রের সাহায্যে নিচে তা-ই দেখানো হলঃ
       

       
      উপরের চিত্রে আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, ৪ঘন্টার চার্টে উক্ত পেয়ারটির ট্রেন্ড সেল এ আছে, তাই যখনই পেয়ারটির মার্কেট কারেকশনের জন্য বাই এ যাবে এবং একটা রেসিস্টেন্স/পিনবার /সেল ইন্ডিকেট করে এমন ক্যান্ডেল তৈরি করবে ঠিক তখন-ই সেল এন্ট্রি দিন এবং স্টপ লস ঐই হাই মুল্যের উপরে/ওই মুল্যের উপরেররে রেসিস্টেন্স এ দিন। এ ধরনের ট্রেড করে আপনি কম রিস্ক নিয়ে হাই প্রফিট নিতে পারবেন।
       
      নিচে আমরা ৪ঘন্টার চার্টে আরেকটি পেয়ারে ট্রেন্ড ফলো করে কিভাবে প্রফিটেবল ট্রেডের এন্ট্রি দিবো তা-ই দেখানো হলঃ
       

         
      উপরের চিত্রে আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, পেয়ারটি ডাউন/সেল ট্রেন্ড এ আছে। যেকোনো কারেন্সি-ই অনেকটা সেল/বাই এ গেলে মিনিমাম একটা কারেকশন অবশ্যই করে থাকে, এটা আমরা সবাই কম বেশী দেখি আর এ কারেকশন মেজর পেয়ারগুলোর ক্ষেত্রে বেশীরভাগ সময় ৩০-৭০% পর্যন্ত হতে পারে। উপরের চার্টের ন্যায় যখন কোনো পেয়ার সেল এ গিয়ে সাপোর্ট/কেই লেভেল তৈরি করে, তখন আপনি কারেকশনের সুযোগটা নিতে পারেন এবং ওই সাপোর্ট/কেই  লেভেল এ বাই করতে পারেন এবং রেসিস্টেন্স লেভেল/সুইং হাই দেখে টেক প্রফিট দিতে পারেন আর স্টপ লস ওই সাপোর্ট/কেই  লেভেল এর নিচে দিতে পারেন। আর কারেকশন লেভেলের হাই রেট এ আবার সেল এন্ট্রি দিন এবং হাই প্রফিট নিন যেহেতু পেয়ারটির ট্রেন্ড সেলে আছে।  
       
      দৈনিক চার্টে ট্রেন্ড দেখে ট্রেডে কিভাবে এন্ট্রি দিবেন, নিচের চিত্রে তাই দেখানো হলঃ
       

            
      উপরের চিত্রে দৈনিক চার্টে পেয়ারটির ট্রেন্ড আমরা সেল এ দেখতে পাচ্ছি, যেহেতু পেয়ারটি এর আগে একটি সাপোর্ট ও কী লেভেল ক্রস করে সেলে এসেছে তাই টেকনিক্যাল এ্যনালাইসিস অনুযায়ী পেয়ারটি সে মুল্য পর্যন্ত আবার যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই আপনি এ অবস্থায় বাই ট্রেড এ এন্ট্রি দিন আর স্টপ লস বর্তমান মূল্যের সাপোর্টের নিচে দিন। যেহেতু পেয়ারটির ট্রেন্ড সেলে তাই টেক প্রফিট উপরের রেসিস্টেন্স/কী লেভেলের কাছাকাছি দিন এবং বর্তমান মুল্যের উপরের রেসিস্টেন্স/হাই/সুইং হাই এ সেল এর পেন্ডিং অর্ডার দিন আর এভাবেই ট্রেন্ড এর সাথে থেকে লুফে নিন আপনার প্রফিট।
       
      উপরের চিত্র এবং আলোচনাটুকু বুঝতে নিশ্চয় আপনার কষ্ট হবার কথা নয়, যাইহোক – মার্কেট ট্রেন্ড সব সময়-ই ট্রেডারদের বন্ধু একথা মনে রেখেই ট্রেডে এন্ট্রি দিবেন, কারেকশন ট্রেড করার সময় অবশ্যই স্টপ লস ব্যবহার করবেন নতুবা বিশাল লসের সম্মুখীন হবেন। আর সব সময় ট্রেন্ড এর সাথেই থাকুন তাহলেই সফল হবেন। আর ট্রেন্ড লাইন আঁকা এবং বুঝা নিয়ে আপনাদের প্রিয় ফরেক্স এডুকেশন সাইট বিডিফরেক্সপ্রো-তে অনেকগুলো পোষ্ট আছে, ট্রেন্ড লাইন সম্পর্কে আরো জানার জন্য পোষ্টগুলো পড়ে দেখুন আশা করি আরো পরিস্কারভাবে বুঝতে পারবেন।      
       
      ধন্যবাদ।
    • By A H Royal
      ট্রেডপ্রিয় বন্ধুরা,GBPUSD পেয়ারটি গত সপ্তাহের ট্রেডিং সেশনে মোট ২৫৪পিপ্স বাই এ যায় এবং পেয়ারটি ১% প্রফিটে ১.৬৯৬৫ রেট এ মার্কেট ক্লোজ করে। দৈনিক চার্ট যদি লক্ষ করেন, তাহলে দেখবেন যে উক্ত পেয়ারটি নিখুঁতভাবে বাই এ ব্রেকআউট হয়েছে এবং বর্তমানে স্ট্রং বাই ট্রেন্ড এ আছে। পেয়ারটি যদি বাই এ ১.৭০০০ ক্রস করে তাহলে আরো ১৫০-২০০পিপ্স বাই এ যাওয়ার পসিবিলিটি আছে। তবে বাই এ যাওয়ার পূর্বে সেল এ ৫০-৮০পিপ্স কারেকশন করার একটা সম্ভাবনা আছে। এ সপ্তাহের জন্য উক্ত পেয়ার এর সাপোর্ট জোন হিসেবে ধরা যায় যথাক্রমে ১.৬৯০০ ও স্ট্রং সাপোর্ট হিসেবে ১.৬৭৯০ আর রেসিস্টেন্স হিসেবে ১.৭০৫০ ও স্ট্রং রেসিস্টেন্স হিসেবে ১.৭২৫০। আর যদি নিউজ এর কথা ভাবেন তাহলে বলতে হয়, এ সপ্তাহে এ পেয়ারের দুটি কারেন্সিতেই হাই ইমপ্যাক্ট এর ভালো কিছু নিউজ আছে, বিশেষ করে USD এর FOMC নিউজগুলোর উপর হয়তো অনেক কিছু নির্ভর করবে, তবে GBP এর নিউজগুলোও কোনো অংশে কম নয়।  
       
      তাই আপনাদের যেন উক্ত পেয়ার এ ট্রেড করতে সুবিধা হয় সে জন্য চিত্রের সাহায্যে উক্ত কারেন্সির সাপোর্ট, রেসিস্টেন্স, মার্কেট ট্রেন্ড এবং একটা ট্রেড আইডিয়া শেয়ার করলাম।
       
      GBPUSD ডেইলি চার্ট এ সাপোর্ট রেসিস্টেন্স ও মার্কেট ট্রেন্ড চিত্রঃ
       

       

       
      উপরোক্ত চিত্রে সাপোর্ট ও রেসিস্টেন্স সমুহঃ সম্পূর্ণ চার্ট আয়ত্তে না আসায় গ্রাফের সাহায্যে রেসিস্টেন্স সমুহ দেখানো সম্ভব হয়নি।
      রেসিস্টেন্স সমুহঃ ১.৬৯৮৫, ১.৭০৪৩,  ১.৭১৮৬, ১.৭১২৫, ১.৭১৫৫ ও স্ট্রং রেসিস্টেন্স ১.৭২৫০।  
      সাপোর্ট সমুহঃ ১.৬৯৩০, ১.৬৯০০, ১.৬৮৭০, ১.৬৮১৯, ১.৬৭৫৩ ও স্ট্রং সাপোর্ট  ১.৬৬২৫।
       
      GBPUSD - পেয়ারটির এ সপ্তাহের (জুন ১৬-২০) হাই ইমপ্যাক্ট নিউজগুলো জেনে নিনঃ সপ্তাহের প্রথম দিনে উক্ত পেয়ারটির কোনো নিউজ নেই।
       
      ১৭ জুন মঙ্গলবার
      দুপুর ২.৩০মিনিট   GBP CPI y/y
      সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট   USD Building Permits
      সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট   USD Core CPI m/m
       
      ১৮ই জুন বুধবার – এই দিন একমাত্র GBP কারেন্সিতেই হাই ইমপ্যাক্ট এর দুটি নিউজ আছে। এতে GBPUSD পেয়ারটিতে এ দিন ভালো একটি মুবমেন্ট হওয়ার সম্ভাবনা আছে।
       
      দুপুর ২.৩০মিনিট GBP MPC Asset Purchase Facility Votes
      দুপুর ২.৩০মিনিট GBP MPC Official Bank Rate Votes
       
      ১৯ই জুন বৃহস্পতিবার
      রাত ১২.০০মিনিট(AM) USD FOMC Economic Projections
      রাত ১২.০০মিনিট(AM) USD FOMC Statement
      রাত ১২.৩০মিনিট(AM) USD FOMC Press Conference
      দুপুর ২.৩০মিনিট   GBP Retail Sales m/m
      সন্ধ্যা ৬.৩০মিনিট   USD Unemployment Claims
      রাত ৮.০০মিনিট   USD Philly Fed Manufacturing Index
       
      উপরোক্ত নিউজগুলো দেখেই বুঝতে পারছেন যে এই পেয়ারটি এ সপ্তাহে ট্রেডেবল হবে এবং যার যার এ্যকচু্য্যাল নিউজ পজিটিভ হলে উক্ত পেয়ারে ভালো স্ক্যাল্পিং করা যাবে। তবে GBP থেকে USD এর নিউজগুলো বেশী ইপেক্টিভ হবে বলে আশা করছি।
      এই সপ্তাহে আপনি উক্ত কারেন্সিতে যেভাবে ট্রেড করবেনঃ নিউজের কারণে এ সপ্তাহে উক্ত পেয়ার এ একটু ভিন্ন ট্রেড আইডিয়া দিচ্ছি তা হলো, যারা সাধারণ নিয়মে ট্রেড করে থাকেন তারা প্রথম সাপোর্ট ক্রস করে-
       
      ১.৬৯৩০ থেকে ১.৬৮৯০ এর মধ্যে বাই ট্রেড করুন। এক্ষেত্রে স্টপ লস দিন ১.৬৮৬০ আর টেক প্রফিট দিন ৮০-১২০ পিপ্স।
      ১.৬৮৬০ ক্রস করলে সেল ট্রেড করুন, স্টপ লস ১.৬৯২৫ টেক প্রোফিট ৭০ পিপ্স দিন।
      ১.৭০২৫ থেকে ১.৭০৫০ এর মধ্যে সেল ট্রেড করুন। স্টপ লস ৩০পিপ্স টেকপ্রফিট ১০০-১৫০পিপ্স দিন।
       
      ট্রেড এ উপস্থিত না থাকলে একটির বেশী পেন্ডিং অর্ডার দিবেন না। যদি আপনার একটি অর্ডার নিয়ে নেয় তাহলে সে অর্ডারটি ক্লোজ না করে আরেকটি অর্ডার দিবেন না। বিশেষ করে বাই সেল করে ট্রেড লক করবেন না। আর যারা স্ক্যাল্পিং করেন তারা অবশ্যই ট্রেন্ড ফলো করবেন। হাই ইমপ্যাক্ট নিউজ আওয়ার এ দেখে ও বুঝে ট্রেড করবেন। এই এ্যনালাইসিস সাপ্তাহিক ট্রেডাররা ফলো  করলে ভালো, তবে ডেইলি ট্রেডাররা লট সাইজ আনুপাতিক হারে কমিয়ে করতে পারেন। গুডলাক।  
       
      ধন্যবাদ সবাইকে।
       
      বিঃ দ্রঃ ফরেন এক্সচেঞ্জ একটি হাই রিস্ক লেভেল ট্রেডিং মার্কেট যা সকল ইনভেস্টর বা ট্রেডারদের জন্য যথাযোগ্য নয়। কারেন্সি ট্রেডিং এ ট্রেডারদের ট্রেড এর যে কোনরূপ পরিবর্তন ট্রেডাররা নিজ দায়িত্বে বহন করবে। সে জন্য বিডিফরেক্সপ্রো কোনো প্রকার দায়ী থাকিবে না।
    • By A H Royal
      প্রিয় ট্রেডার বন্ধুরা, মার্কেট ট্রেন্ড আঁকা ও বুঝা ফরেক্স ট্রেডারদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। যারা ট্রেন্ডলাইন বুঝে এবং আঁকতে পারে তারা যে কোনো  টাইমফ্রেমে যে কোনো কারেন্সি পেয়ার/জোড় এ ট্রেড করে সফলতা অর্জন করতে সক্ষম। আজকে আমরা  ৩টি ধাপে ট্রেন্ড লাইন আঁকা/বুঝা শিখবো যার মাধ্যমে আমরা কখন ট্রেড ওপেন করবো আর কখন সফলভাবে ট্রেড থেকে বের হব তা শিখতে পারবো।
       
      ট্রেন্ডলাইন হলো সফল ফরেক্স ট্রেডারদের ট্রেড করার জন্য সবচেয়ে বড় কৌশল। আপনি যতই ইন্ডিকেটর ব্যাবহার করেননা কেন আপনি যদি ট্রেন্ডলাইন না বুঝেন তাহলে সফল ট্রেডার হওয়া আপনার জন্য অনেক কঠিন হবে। যে কোনো পেয়ার এ ট্রেন্ডলাইন আঁকার জন্য আপনাকে সে পেয়ার এর হাই রেট টু হাই রেট অথবা লো রেট টু লো রেট এ নির্দিষ্ট টাইমফ্রেমে (১ঘন্টা, ৪ঘন্টা) আঁকতে হবে।  তবে আমারমতে টাইমফ্রেম ১ঘন্টা হলে ভালো।  
       
      আসুন তাহলে পদ্ধতিগুলো জেনে নেই।
       
      ১) সুইং লো থেকে সুইং লো অথবা সুইং হাই থেকে সুইং হাই
      আমরা দুই বা ততোদিক সুইং লো রেট ও দুই বা ততোদিক সুইং হাই রেট ক্যান্ডেল দুটির মধ্যে একটি রেখা আঁকবো যাতে আমরা বুঝতে পারি যে মার্কেট ট্রেন্ড কোন দিকে যাচ্ছে বা যে দিকে আছে তা ব্রেক করে ট্রেন্ড পরিবর্তন হচ্ছে কিনা। তাহলেই আমারা ট্রেড করার সিদ্ধান্ত নিতে পারবো।
       
      আসুন আমরা চিত্রের সাহায্যে দেখে নেই কিভাবে আমরা ট্রেন্ডলাইন আঁকবোঃ
       
      ট্রেন্ডলাইন আঁকার ভুল পদ্ধতি নিম্নরূপঃ

       
      ট্রেন্ডলাইন আঁকার সঠিক পদ্ধতি নিম্নরুপঃ

       
      উপরোক্ত চিত্র দুটিতে ১ম চিত্রটি ট্রেন্ডলাইন আঁকার ভুল একটি পদ্ধতি যার ফলে আপনি ভুল ট্রেড করে ট্রেড এ লস দিতে পারেন আর ২য় চিত্রটি হলো সঠিক পদ্ধতি। আপনি যদি ২য় চিত্রটির মতো সঠিকভাবে ট্রেন্ডলাইন আঁকতে পারেন তাহলে দেরিতে হলেও সফলতা আপনার অবশ্যই আসবে।
       
      বিঃ দ্রঃ এ পোষ্টটি আকারে বড় হওয়ায় বাকী দুইটি পদ্ধতি পর্ব আকারে দেয়া হবে।  
       
       
       
×
×
  • Create New...