Jump to content

Search the Community

Showing results for tags 'ফান্ডামেন্টাল'.

  • Search By Tags

    Type tags separated by commas.
  • Search By Author

Content Type


Forums

  • সাধারণ ফরেক্স সহায়তা
  • ফরেক্স ট্রেডিং আলোচনা, ট্রেডিং স্ট্রেটিজি, নিউজ এবং সিগন্যাল সম্পর্কিত
    • ফরেক্স ট্রেডিং আলোচনা
    • মাস্টার ট্রেডিং স্ট্রেটিজি
    • এনালাইসিস, নিউজ, সিগনাল
    • ফোরাম ও পোর্টাল সহায়তা
  • ফরেক্স ব্রোকার সম্পর্কিত
  • বিজ্ঞাপন
  • অফ-টপিক

Categories

  • সাধারণ ফরেক্স বই
  • টেকনিক্যাল এনালাইসিস
  • ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস
  • ক্যান্ডলেস্টিক এনালাইসিস
  • ইনডিকেটর

Find results in...

Find results that contain...


Date Created

  • Start

    End


Last Updated

  • Start

    End


Filter by number of...

Joined

  • Start

    End


Group


ওয়েবসাইট URL


ইয়াহু(Yahoo)


স্কাইপ(Skype)


ঠিকানা


ইচ্ছা/আগ্রহ/শখ

  1. ১১ জুলাইয়ের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস বৃহস্পতিবারে বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট নির্ধারিত হয়েছে। দিনের মূল ইভেন্ট হবে মার্কিন মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদনের প্রকাশনা, কিন্তু এই প্রতিবেদনটি কারেন্সি পেয়ারের উপর কি ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে? উভয় প্রধান কারেন্সি পেয়ারের দর বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে, ইউরো খুব ন্যূনতম মুভমেন্ট প্রদর্শন করছে। ধরুন মার্কিন মুদ্রাস্ফীতি পূর্বাভাস অনুযায়ী সামান্য মন্থর হয়ে গেছে বা এটি আরও উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি প্রদর্শন করেছে। সেক্ষেত্রে, আমাদের আশা করা উচিত যে মার্কিন ডলারের দাম কমে যাবে এবং উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্য বৃদ্ধি পাবে। যাইহোক, অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের সাহায্য ছাড়াই পাউন্ড স্টার্লিংয়ের মূল্য বাড়ছে। স্পষ্টতই এই মুহূর্তে পাউন্ডের সংবাদ বা সামষ্টিক প্রতিবেদন থেকে কোন সমর্থনের প্রয়োজন নেই। অধিকন্তু, মার্কিন জবলেস ক্লেইমস সংক্রান্ত স্বল্প গুরুত্বসম্পন্ন প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। জার্মানিতে, আজ জুনের মুদ্রাস্ফীতির দ্বিতীয় অনুমান প্রকাশ করা হবে – এটিও গুরুত্বের দিক থেকে গৌণ প্রতিবেদন। যুক্তরাজ্যে জিডিপি এবং শিল্প উৎপাদনের মাসিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে। এগুলি মার্কেটের জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন নয়। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, আমরা শুধুমাত্র ফেডারেল রিজার্ভের প্রতিনিধি রাফেল বস্টিকের বক্তৃতার কথা তুলে ধরতে পারি। যাইহোক, এই সপ্তাহে, ফেডের অন্যান্য বেশ কয়েকজন নীতিনির্ধারক ইতোমধ্যেই বক্তৃতা দিয়েছেন, যা উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টের উপর কোন প্রভাব ফেলেনি এবং মার্কেটে কোন নতুন তথ্য প্রদান করেনি। এমনকি ফেডের চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়েল নিজেও কোনো নতুন তথ্য প্রদান করেননি এবং মার্কিন কংগ্রেসে তার বক্তব্যে ডোভিশ বা নমনীয় অবস্থান গ্রহণের পর্যাপ্ত ইঙ্গিত দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। উপসংহার: বৃহস্পতিবার একটি উল্লেখযোগ্য ইভেন্ট রয়েছে এবং সেটি হচ্ছে মার্কিন মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদন। তবে, আমরা সন্দিহান যে মার্কেটের ট্রেডাররা এই প্রতিবেদনের ফলাফলের প্রতি যৌক্তিক প্রতিক্রিয়া দেখাবে কিনা। জুনের শেষে মুদ্রাস্ফীতি কমে গেলে ইউরো এবং পাউন্ডের দাম আবার বাড়তে পারে। যাইহোক, ইউরোর মূল্য স্থবির অবস্থায় রয়েছে, এবং পাউন্ড স্টার্লিংয়ের মূল্য মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদন ছাড়াই বেড়েছে। এইভাবে, উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্য যেকোনো দিকে যেতে পারে, এবং মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের ফলাফল শুধুমাত্র মুভমেন্ট শুরু কারণ হিসাবে কাজ করবে। Read more: https://ifxpr.com/4bGINDJ
  2. ৯ জুলাইয়ের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবারের জন্য কোনো সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট নির্ধারিত নেই। গতকাল, মার্কেটের ট্রেডররা ইউরো এবং পাউন্ড কেনার কারণ খুঁজে পেয়েছিল, কিন্তু এই ধরনের পরিস্থিতি চিরকাল স্থায়ী হয় না। গত সপ্তাহে, উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের বেশ তীক্ষ্ণ ঊর্ধ্বমুখী মুভমেন্ট দেখা গিয়েছে, তাই এই সপ্তাহে বিয়ারিশ কারেকশন দেখা যেতে পারে। তাত্ত্বিকভাবে, ফেডারেল রিজার্ভ প্রধান জেরোম পাওয়েলের বক্তৃতা এবং মার্কিন মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের প্রকাশনা ডলারের মূল্যের উত্থানকে উস্কে দিতে পারে। কিন্তু বাস্তবে, মার্কেটের ট্রেডাররা খুব কমই পাওয়েলের হকিস বা কঠোর অবস্থান এবং মুদ্রাস্ফীতির পূর্বাভাসের সাথে প্রকৃত ফলাফলের সঙ্গতির বিষয়টি বিবেচনা করছে। অতএব, যদি এই ইভেন্টগুলো ডলারকে সমর্থন করে তবে সেটি আনন্দদায়ক হবে, তবে মার্কিন মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদন প্রকাশের আগে মার্কিন গ্রিনব্যাকের মূল্যের কিছুটা কারেকশনও হতে পারে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: আজকের জন্য প্রধান ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট হল মার্কিন কংগ্রেসে পাওয়েলের বক্তৃতা। নির্ধারিত সময়ে ফেডের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে তার বক্তৃতা পাওয়া যেতে পারে, তবে কংগ্রেসম্যানরা সম্ভবত তাকে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করবে, যার জবাব পাওয়েলকে দিতে হবে। মঙ্গলবার ডলারের মূল্যের পরিস্থিতি এই উত্তরগুলোর উপর নির্ভর করবে। এছাড়াও ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের প্রতিনিধি ক্লেল্যান্ড এবং ট্রুরান, ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সদস্য সিপোলোন এবং ফেডের কর্মকর্তা বার এবং বোম্যানের বক্তৃতা রয়েছে। অতএব, আজ প্রধান কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর অনেক প্রতিনিধির বক্তব্য রয়েছে, কিন্তু এগুলো মার্কেটের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়ে গেছে। উপসংহার: মঙ্গলবার একটিমাত্র উল্লেখযোগ্য ইভেন্ট রয়েছে। সম্ভবত, উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের কিছুটা নিম্নমুখী কারেকশন দেখা যেতে পারে, কিন্তু উভয় পেয়ারের মূল্যের অস্থিরতার মাত্রা আবারও কম থাকতে পারে। সবকিছু পাওয়েলের বক্তব্যের ওপর নির্ভর করবে। মার্কেটের ট্রেডাররা তার বক্তৃতায় ডোভিশ সিগন্যাল খুঁজে পেলে, ডলারের দরপতন অব্যাহত থাকতে পারে। Read more: https://ifxpr.com/4cTVVGA
  3. ৩ জুলাইয়ের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বুধবারে অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট আছে, কিন্তু কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে। যাইহোক, গত দুই দিনে আমরা দেখতে পেয়েছি যে বাজার, সামষ্টিক অর্থনৈতিক পটভূমি নির্বিশেষে, আরও ট্রেডাররা সক্রিয় হতে প্রস্তুত নয়। ইউরো এবং পাউন্ড উভয়ের মূল্যের সাইডওয়েজ মুভমেন্ট পরিলক্ষিত হচ্ছে। অতএব, আমরা আজ একই পরিস্থিতি দেখতে পারি। জুনের ইউরোজোন, জার্মানি, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে স্ট্যান্ডার্ড সার্ভিসেস পিএমআই প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে। এগুলো গুরুত্বের দিক থেকে গৌণ প্রতিবেদন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আরও গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে: পরিষেবা খাতে আইএসএম ব্যবসায়িক কার্যকলাপ সূচক এবং বেসরকারী খাতের কর্মসংস্থানের পরিবর্তনের উপর এডিপি থেকে প্রতিবেদন (ননফার্ম পেরোলের অনুরূপ) প্রকাশিত হবে। এই প্রতিবেদনগুলি মার্কেটে ট্রেডারদের প্রতিক্রিয়া উস্কে দিতে পারে, কিন্তু উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের স্বল্প মাত্রার অস্থিরতা বিরাজ করবে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বুধবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, শুধুমাত্র FOMC-এর সর্বশেষ বৈঠকের মিনিট বা কার্যবিবণী প্রকাশিত হবে। মনে রাখবেন যে ফেডের মিনিট বা কার্যবিবরণীর প্রকাশনা সর্বদা একটি আনুষ্ঠানিকতা। মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান ইতোমধ্যেই বৈঠকের পরে সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করে, অথবা এটি সভার চূড়ান্ত বিবৃতিতে অন্তর্ভুক্ত থাকে। অতএব, আমরা ফেডের মিনিটের প্রভাবে মার্কেটে কোন প্রতিক্রিয়ার আশা করছি না। উপসংহার: বুধবার বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। আজকের আলোচ্যসূচির প্রধান প্রতিবেদনগুলো হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ADP এবং ISM থেকে প্রকাশিতব্য প্রতিবেদন৷ যাইহোক, গত দুই দিনেও যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদনের প্রকাশনা এবং ইভেন্ট ছিল, কিন্তু মার্কেটে সেগুলোর ধারাবাহিক প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি। মার্কেটের ট্রেডাররা সেগুলোর মধ্যে কয়েকটি প্রতিবেদন উপেক্ষা করেছে, কারণ তারা বর্তমানে ফ্রান্সের নির্বাচনে অনেক বেশি আগ্রহী। মনে হচ্ছে আজ উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্য উল্লেখযোগ্য অস্থিরতা ছাড়াই সাইডওয়েজ মুভমেন্ট প্রদর্শন করতে থাকবে। Read more: https://ifxpr.com/3xIt351
  4. পহেলা জুলাইয়ের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: সোমবার বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে বলে নির্ধারিত হয়েছে। জার্মানি, ইইউ, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জুনের স্ট্যান্ডার্ড ম্যানুফ্যাকচারিং পিএমআই-এর দ্বিতীয় অনুমান প্রকাশ করা হবে। এই প্রতিবেদনগুলোর ফলাফল উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টের উপর খুব একটা শক্তিশালী প্রভাব ফেলবে না। উপরন্তু, জার্মানিতে জুনের মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে, যা বেশ আকর্ষণীয় হতে পারে। পূর্বাভাস অনুযায়ী, দেশটির ভোক্তা মূল্য সূচক 2.4% থেকে 2.3% পর্যন্ত হ্রাস পাবে, যা ইউরোর উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে। মনে করে দেখুন যে ইউরোজোনের শেষ প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে এই অঞ্চলের বার্ষিক মুদ্রাস্ফীতি 0.2% বেড়েছে, কিন্তু যদি মুদ্রাস্ফীতি আবার কমে যায়, তাহলে এটি ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংককে সেপ্টেম্বরে সুদের হার কমানোর কাছাকাছি নিয়ে যেতে পারে। এগুলো ইউরোর জন্য বিয়ারিশ ফ্যাক্টর। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, আইএসএম ম্যানুফ্যাকচারিং ইনডেক্সও প্রকাশিত হবে এবং এটি আজকের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন। যদি এই সূচকটি প্রত্যাশিত 49 পয়েন্টের চেয়ে বেশি বেড়ে যায় তবে এই প্রতিবেদনটির প্রভাবে ডলারের মূল্য বাড়তে পারে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: সোমবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, আমরা শুধুমাত্র ইসিবি সভাপতি ক্রিস্টিন লাগার্ডের বক্তৃতার কথা তুলে ধরতে পারি। গত দুই সপ্তাহে, ইউরোজোনে কোনো উল্লেখযোগ্য প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়নি, তাই তিনি মন্তব্য করতে পারেন এমন নতুন কোনো তথ্য নেই। যাইহোক, ইসিবির সর্বশেষ বৈঠকের পর পর্যাপ্ত সময় অতিবাহিত হয়েছে, তাই লাগার্ডে মার্কেটে কিছু নতুন তথ্য প্রদান করতে পারেন। উপসংহার: ট্রেডাররা বেশ কয়েকটি আকর্ষণীয় প্রতিবেদন হাতে পাবেন, তবে আমরা লাগার্ডের বক্তৃতা, জার্মানির মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আইএসএম প্রতিবেদনকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছি। ফলে, দীর্ঘ সময়ের মধ্যে প্রথমবারের মতো, আমরা "ঘটনাবহুল সোমবার" প্রত্যক্ষ করতে পারি, তবে সবকিছু এই সূচকগুলোর প্রকৃত ফলাফলের উপর নির্ভর করবে। https://ifxpr.com/3zpIhMV
  5. ২৭ জুনের মূল ইভেন্ট:  ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবারের জন্য বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট নির্ধারিত হয়েছে, যার মধ্যে কিছু অপেক্ষাকৃত গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদনের প্রকাশনা রয়েছে। জার্মানি, যুক্তরাজ্য এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডার তুলনামূলকভাবে তেমন গুরুত্বপূর্ণ কিছু নেই। যাইহোক, ট্রেডাররা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিতব্য জিডিপি প্রতিবেদনের চূড়ান্ত মূল্যায়ন এবং ডিউরেবল গুডস অর্ডার সংক্রান্ত প্রতিবেদনের দিকে মনোযোগ দিতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, এগুলো বেশ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন, যদিও এই সপ্তাহের শুরুতে আমরা বলেছিলাম যে এগুলোর ফলাফলের প্রভাবে ট্রেডারদের কাছ থেকে শক্তিশালী প্রতিক্রিয়ার আশা করা উচিত নয়। যাইহোক, এই সপ্তাহে, আগ্রহের জন্ম দিতে পারে এমন কোন প্রতিবেদন পাওয়া যায়নি। অতএব, এমনকি এই প্রতিবেদনগুলোর ফলাফলও মার্কিন ট্রেডিং সেশনের সময় উল্লেখযোগ্য মুভমেন্টের দিকে নিয়ে যেতে পারে কারণ অন্য কোন বড় অনুঘটক নেই। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, আমরা শুধুমাত্র ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাঙ্কের কর্মকর্তা ফ্র্যাঙ্ক এল্ডারসনের বক্তৃতার কথা তুলে ধরতে পারি, তবে এটি স্পষ্ট যে এই ইভেন্টটি খুব একটা আগ্রহ সৃষ্টি করবে না। মার্কেটের ট্রেডাররা ইতোমধ্যেই জানেন যে আগামী মাসগুলিতে ইসিবির কাছ থেকে কী আশা করা যায় এবং আমরা ইতোমধ্যেই ইসিবির মুদ্রা কমিটির অনেক প্রতিনিধির বক্তব্য শুনেছি। তারা সবাই কমবেশি একই জিনিস বলছে - সেপ্টেম্বরে দ্বিতীয়বারের মতো স্যদের হার কমানো যেতে পারে এবং বছরের শেষ নাগাদ প্রতিটি বৈঠকে 0.25% করে তিনবার সুদের হার কমানো হতে পারে। উপসংহার: আজ, আমরা সপ্তাহের প্রথম তিন দিনের তুলনায় আজ কিছুটা শক্তিশালী মুভমেন্টের আশা করতে পারি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বেশ কয়েকটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে, এবং বিনিয়োগকারীরা সেগুলোর ফলাফলের প্রতি প্রতিক্রিয়া জানাতে পারে। উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্ট সম্পূর্ণরূপে এই প্রতিবেদনের উপর নির্ভর করতে পারে। https://ifxpr.com/45Kr9NK
  6. ২০ জুনের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবার অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে। যুক্তরাজ্য, জার্মানি এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে তুলে ধরার মতো কিছুই নেই। এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিল্ডিং পারমিট এবং প্রাথমিক জবলেস ক্লেইমসের বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। এই প্রতিবেদনগুলো গুরুত্বের দিকে গৌণ, তাই সেগুলোর প্রভাবে মার্কেটে শুধুমাত্র সামান্য প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। অতএব, আমরা আজ উচ্চ মাত্রার অস্থিরতার আশা করছি না, অন্তত EUR/USD পেয়ারের জন্য। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, সবার দৃষ্টি ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডের বৈঠকের দিকে রয়েছে৷ সুদের হার কমানোর সম্ভাবনা রয়েছে, কারণ গতকালের প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের লক্ষ্যমাত্রায় ফিরে এসেছে। সাধারণভাবে, মার্কেটের ট্রেডাররা সুদের হার কমানোর আশা করছে না, এবং এছাড়াও, তারা এই পেয়ারের সেল অফ বা ব্যাপক বিক্রির জন্য প্রস্তুত নয়। আমরা মনে করি যে যদি ব্রিটিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার কমায় তাহলে আজ পাউন্ডের দরপতন হতে পারে, যদিও ইতোমধ্যে অনেক আগেই পাউন্ডের উল্লেখযোগ্য দরপতন হওয়া উচিত ছিল। যাইহোক, দেখা যাচ্ছে যে মার্কেটের ট্রেডাররা GBP/USD বিক্রি করতে আগ্রহী নয়৷ সুদের হারের ব্যাপারে ভোটের ফলাফল বেশ গুরুত্বপূর্ণ। যদি আগের সভার তুলনায় ডোভিশ অবস্থান গ্রহণকারী সদসের ভোটের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়, তবে এটি পাউন্ড বিক্রি করার একটি কারণ হবে। যাইহোক, আমরা নিশ্চিত করতে পারি না যে পাউন্ডের মূল্য কমে যাবে। উপসংহার: আজ, আমরা আশা করি মার্কেটে মুভমেন্ট বৃদ্ধি পাবে, কিন্তু তারপরে আবার দিনের একমাত্র ইভেন্ট হল ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠক৷ গতকালের মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের মতোই, এই বৈঠকজ থেকে শুধুমাত্র খুব হকিশ বা কঠোর ফলাফল ব্রিটিশ পাউন্ডের উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে। এদিকে, সম্ভবত স্বল্প মাত্রার অস্থিরতার সাথে ইউরোর ট্রেড করা হবে। https://ifxpr.com/4bjQcc0
  7. ২০ জুনের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবার অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে। যুক্তরাজ্য, জার্মানি এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে তুলে ধরার মতো কিছুই নেই। এদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিল্ডিং পারমিট এবং প্রাথমিক জবলেস ক্লেইমসের বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। এই প্রতিবেদনগুলো গুরুত্বের দিকে গৌণ, তাই সেগুলোর প্রভাবে মার্কেটে শুধুমাত্র সামান্য প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। অতএব, আমরা আজ উচ্চ মাত্রার অস্থিরতার আশা করছি না, অন্তত EUR/USD পেয়ারের জন্য। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, সবার দৃষ্টি ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডের বৈঠকের দিকে রয়েছে৷ সুদের হার কমানোর সম্ভাবনা রয়েছে, কারণ গতকালের প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের লক্ষ্যমাত্রায় ফিরে এসেছে। সাধারণভাবে, মার্কেটের ট্রেডাররা সুদের হার কমানোর আশা করছে না, এবং এছাড়াও, তারা এই পেয়ারের সেল অফ বা ব্যাপক বিক্রির জন্য প্রস্তুত নয়। আমরা মনে করি যে যদি ব্রিটিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার কমায় তাহলে আজ পাউন্ডের দরপতন হতে পারে, যদিও ইতোমধ্যে অনেক আগেই পাউন্ডের উল্লেখযোগ্য দরপতন হওয়া উচিত ছিল। যাইহোক, দেখা যাচ্ছে যে মার্কেটের ট্রেডাররা GBP/USD বিক্রি করতে আগ্রহী নয়৷ সুদের হারের ব্যাপারে ভোটের ফলাফল বেশ গুরুত্বপূর্ণ। যদি আগের সভার তুলনায় ডোভিশ অবস্থান গ্রহণকারী সদসের ভোটের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়, তবে এটি পাউন্ড বিক্রি করার একটি কারণ হবে। যাইহোক, আমরা নিশ্চিত করতে পারি না যে পাউন্ডের মূল্য কমে যাবে। উপসংহার: আজ, আমরা আশা করি মার্কেটে মুভমেন্ট বৃদ্ধি পাবে, কিন্তু তারপরে আবার দিনের একমাত্র ইভেন্ট হল ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠক৷ গতকালের মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের মতোই, এই বৈঠকজ থেকে শুধুমাত্র খুব হকিশ বা কঠোর ফলাফল ব্রিটিশ পাউন্ডের উপর চাপ সৃষ্টি করতে পারে। এদিকে, সম্ভবত স্বল্প মাত্রার অস্থিরতার সাথে ইউরোর ট্রেড করা হবে। https://ifxpr.com/4bjQcc0
  8. সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বুধবার অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে। যাইহোক, যুক্তরাজ্যে মে মাসের গুরুত্বপূর্ণ মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদন প্রকাশিত হতে চলেছে। মুদ্রানীতির পরিবর্তন নির্ধারণ করার সময় কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কগুলোর জন্য মুদ্রাস্ফীতি সংক্রান্ত প্রতিবেদন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অতএব, আজকের মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদন আগামীকাল বা দেড় মাসের মধ্যে ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের বৈঠকের ফলাফলকে সরাসরি প্রভাবিত করতে পারে। আমরা মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদনের প্রভাবে মার্কেটে শক্তিশালী প্রতিক্রিয়ার আশা করচি না। এমনকি এই প্রতিবেদনের ফলাফল পূর্বাভাসের তুলনায় ভিন্ন হলেও মার্কেটের ট্রেডারদের বেশ নিঃশব্দ প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। এই পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্ট সম্পর্কে বলতে গেলে, মার্কেটের ট্রেডাররা এই প্রতিবেদনের যে কোনও ফলাফলকে ব্রিটিশ মুদ্রার পক্ষে ব্যাখ্যা করতে পারে, কারণ অতীতে এমনটি প্রায়শই ঘটেছে। যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি 2% বা তার চেয়েও কম হতে পারে, যাতে ব্যাংক অব ইংল্যান্ড আগামীকাল যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মুদ্রানীতি নমনীয়করণ শুরু করতে পারে। যাইহোক, এই সূচকের মান 2.1% হল সেটি সহজেই পাউন্ডের মূল্যের নতুন লং পজিশন ওপেন করার প্রবণতা শুরু করতে পারে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বুধবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট থেকে তুলে ধরার কিছু নেই। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড, ফেডারেল রিজার্ভ, বা ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাঙ্কের প্রতিনিধিদের কোনও নির্ধারিত বক্তৃতা নেই৷ যাইহোক, ব্রিটিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংক আগামীকাল সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহ করতে পারে, এবং ইসিবি এবং ফেডের সভা সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়েছিল, তাই মার্কেটের ট্রেডাররা স্পষ্টভাবে জানে যে এই দুটি কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে কী আশা করা যায়।উপসংহার: আমরা বুধবার মার্কেটে স্বল্প মাত্রার অস্থিরতার আশা করছি, কিন্তু দিনের একমাত্র ইভেন্ট হল যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদন। পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে যে এই প্রতিবেদনটির প্রভাবে পাউন্ডের দর বৃদ্ধির সম্ভাবনা বেশি। বৃটিশ মুদ্রার তখনই দরপতনের শিকার হতে পারে যদি মূল্যস্ফীতি পূর্বাভাসের (1.9-2.0%) নিচে নেমে আসে। https://ifxpr.com/3KQA9Yf
  9. ৫ জুনের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস বুধবারের জন্য নির্ধারিত বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে। অবশ্যই, মূল (বা অন্তত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ) দৃষ্টি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিবেদনের দিকে থাকবে, যা এই সপ্তাহ জুড়ে প্রকাশিত হবে। আমরা মনে করি যে এমনকি শ্রম বাজার, বেকারত্ব এবং আইএসএম ব্যবসায়িক কার্যকলাপের প্রতিবেদনের তুলনায় ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাঙ্কের বৈঠক কম গুরুত্বপূর্ণ। আজ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মে মাসের জন্য ISM পরিষেবা সংক্রান্ত ব্যবসায়িক কার্যকলাপের প্রতিবেদন প্রকাশ করা এবং এডিপি থেকে বেসরকারী খাতের কর্মসংস্থানের পরিবর্তন সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে (এই প্রতিবেদনটি নন-ফার্ম পেরোলের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ)। ননফার্ম পেরোল প্রতিবেদন এডিপির প্রতিবেদন থেকে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ, কিন্তু তারপরও মার্কেটের ট্রেডাররা এডিপি থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের প্রতি প্রতিক্রিয়া জানাতে পারে। তদুপরি, ইউরো এবং পাউন্ড উভয়ই বর্তমানে আরও শক্তিশালী হওয়ার জন্য যেকোনো অজুহাত ব্যবহার করছে, তাই ডলারের জন্য প্রতিকূল ফলাফল নিয়ে আসে এমন কম গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদনগুলোও মার্কিন উল্লেখযোগ্য দরপতনকে উস্কে দিতে পারে। ইউরোজোন, জার্মানি এবং যুক্তরাজ্যে মে মাসের পরিষেবা PMI প্রতিবেদন দ্বিতীয় অনুমান প্রকাশিত হবে৷ এই প্রতিবেদন মার্কেটে শুধুমাত্র ছোটখাট প্রতিক্রিয়া উস্কে দিতে পারে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বুধবারের মৌলিক ঘটনার মধ্যে তুলে ধরার কিছু নেই। ইসিবি বৈঠকটি বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠ্যিত হবে বলে নির্ধারিত হয়েছে, তাই মুদ্রা কমিটির সদস্যরা বর্তমানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সম্ভাব্য সিদ্ধান্তের বিষয়ে কোন ধরনের মন্তব্য করতে পারবেন না। ফেডারেল রিজার্ভের বৈঠকও এগিয়ে আসছে, তাই FOMC-এর সদস্যরাও "ব্ল্যাকআউট পিরিয়ড" বা বৈঠকের সিদ্ধান্তের বিষয়ে মৌনব্রত পালন করছে। উপসংহার: আজকের আলোচ্যসূচির প্রধান সামষ্টিক প্রতিবেদন হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিতব্য আইএসএম এবং এডিপি প্রতিবেদন৷ যাইহোক, সামগ্রিকভাবে, মার্কেটে সামষ্টিক অর্থনৈতিক পটভূমির সামান্য তাৎপর্য থাকবে, ট্রেডাররা ইউরোপীয় এবং ব্রিটিশ মুদ্রা কেনার প্রতিটি সুযোগ ব্যবহার করার জন্য প্রচুর প্রচেষ্টা করছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শক্তিশালী প্রতিবেদন প্রকাশ করা হলে, ডলারের শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা নেই। যদি সেগুলোর ফলাফল দুর্বল হয়, তাহলে মার্কিন গ্রিনব্যাকের দরপতনের সম্ভাবনা অনেক বেশি। https://ifxpr.com/3KuMnpf
  10. ৯ মে-এর মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/722512994.jpg সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবারের জন্য অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্টের পরিকল্পনা করা হয়েছে। সাধারণভাবে, আমরা শুধুমাত্র প্রাথমিক জবলেস ক্লেইমস সংক্রান্ত মার্কিন প্রতিবেদনটির কথা তুলে ধরব। যাইহোক, এই প্রতিবেদনটি গুরুত্বের দিক থেকে গৌণ, তাই এই প্রতিবেদনের ফলাফল প্রভাবে আমরা মার্কেটে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টির আশা করছি না। এই সপ্তাহে, খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট নেই। তবে অন্তত আজ, ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের সভা এবং এর গভর্নর অ্যান্ড্রু বেইলির বক্তৃতা রয়েছে, যখন সপ্তাহের প্রথম তিন দিন মার্কেট স্পষ্টতই শান্ত ছিল। অন্তত সোমবার এবং মঙ্গলবার পাউন্ডের মূল্য কিছুটা মুভমেন্ট দেখানোর চেষ্টা করেছে। ইউরো এমন কিছু করেনি। http://forex-bangla.com/customavatars/743850980.jpg ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: আজকের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টগুলোর মধ্যে, ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সভা স্পষ্টতই সবার নজরে থাকবে। ট্রেডারদের প্রত্যাশিত পরিস্থিতি পরিবর্তিত হতে পারে কারণ এটি স্পষ্ট যে ব্রিটিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক নীতিমালা নমনীয় করার সময় এখনও আসেনি। তাই, বেইলি ইতিবাচক মুদ্রাস্ফীতির হার ঘোষণা করতে পারে এবং ভবিষ্যতে সুদের কমানোর ইঙ্গিত দিতে পারে। অন্যদিকে, তিনি নিরপেক্ষ অবস্থান অবলম্বন করতে পারেন, ব্যাংকটির কর্মকর্তাগণ সুদের হার কমানোর বিষয়ে আলোচনা শুরু করার আগে মুদ্রাস্ফীতি 3% এর নিচে নেমে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করার পথ বেছে নিতে পারে। ভোটের ফলাফলের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। আর্থিক কমিটির শুধুমাত্র 1 বা 2 জন সদস্য সুদের হার কমানোর পক্ষে ভোট দিতে পারে, যা সুদের হার কমানোর জন্য যথেষ্ট নয়। যাইহোক, পাউন্ডের দরপতন, যার জন্য আমরা দীর্ঘ সময়ের ধরে অপেক্ষা করছি, কতজন কর্মকর্তা আর্থিক নীতিমালার নমনীয়করণকে সমর্থন করেন তার উপর নির্ভর করতে পারে। উপসংহার: আজ, মূল ইভেন্ট হিসেবে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠক রয়েছে। এটির ফলাফল GBP/USD পেয়ারের মূল্যকে যেকোনো দিকে ঠেলে দিতে পারে। যদিও ব্রিটিশ পাউন্ড ইউরোকে প্রভাবিত করতে পারে, তবে এমনটি সবসময় ঘটে না। অতএব, আমরা বিকেল থেকে পাউন্ডের মূল্যের উল্লেখযোগ্য মুভমেন্টের আশা করছি, কিন্তু ইউরোর মূল্যের মুভমেন্টের ক্ষেত্রে আমরা সন্দিহান। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলো প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা মার্কেট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3QBUPqj
  11. ৯ মে-এর মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/722512994.jpg সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবারের জন্য অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্টের পরিকল্পনা করা হয়েছে। সাধারণভাবে, আমরা শুধুমাত্র প্রাথমিক জবলেস ক্লেইমস সংক্রান্ত মার্কিন প্রতিবেদনটির কথা তুলে ধরব। যাইহোক, এই প্রতিবেদনটি গুরুত্বের দিক থেকে গৌণ, তাই এই প্রতিবেদনের ফলাফল প্রভাবে আমরা মার্কেটে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টির আশা করছি না। এই সপ্তাহে, খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট নেই। তবে অন্তত আজ, ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের সভা এবং এর গভর্নর অ্যান্ড্রু বেইলির বক্তৃতা রয়েছে, যখন সপ্তাহের প্রথম তিন দিন মার্কেট স্পষ্টতই শান্ত ছিল। অন্তত সোমবার এবং মঙ্গলবার পাউন্ডের মূল্য কিছুটা মুভমেন্ট দেখানোর চেষ্টা করেছে। ইউরো এমন কিছু করেনি। http://forex-bangla.com/customavatars/743850980.jpg ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: আজকের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টগুলোর মধ্যে, ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সভা স্পষ্টতই সবার নজরে থাকবে। ট্রেডারদের প্রত্যাশিত পরিস্থিতি পরিবর্তিত হতে পারে কারণ এটি স্পষ্ট যে ব্রিটিশ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক নীতিমালা নমনীয় করার সময় এখনও আসেনি। তাই, বেইলি ইতিবাচক মুদ্রাস্ফীতির হার ঘোষণা করতে পারে এবং ভবিষ্যতে সুদের কমানোর ইঙ্গিত দিতে পারে। অন্যদিকে, তিনি নিরপেক্ষ অবস্থান অবলম্বন করতে পারেন, ব্যাংকটির কর্মকর্তাগণ সুদের হার কমানোর বিষয়ে আলোচনা শুরু করার আগে মুদ্রাস্ফীতি 3% এর নিচে নেমে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করার পথ বেছে নিতে পারে। ভোটের ফলাফলের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। আর্থিক কমিটির শুধুমাত্র 1 বা 2 জন সদস্য সুদের হার কমানোর পক্ষে ভোট দিতে পারে, যা সুদের হার কমানোর জন্য যথেষ্ট নয়। যাইহোক, পাউন্ডের দরপতন, যার জন্য আমরা দীর্ঘ সময়ের ধরে অপেক্ষা করছি, কতজন কর্মকর্তা আর্থিক নীতিমালার নমনীয়করণকে সমর্থন করেন তার উপর নির্ভর করতে পারে। উপসংহার: আজ, মূল ইভেন্ট হিসেবে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠক রয়েছে। এটির ফলাফল GBP/USD পেয়ারের মূল্যকে যেকোনো দিকে ঠেলে দিতে পারে। যদিও ব্রিটিশ পাউন্ড ইউরোকে প্রভাবিত করতে পারে, তবে এমনটি সবসময় ঘটে না। অতএব, আমরা বিকেল থেকে পাউন্ডের মূল্যের উল্লেখযোগ্য মুভমেন্টের আশা করছি, কিন্তু ইউরোর মূল্যের মুভমেন্টের ক্ষেত্রে আমরা সন্দিহান। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলো প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা মার্কেট থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3QBUPqj
  12. ২ মে-এর মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবার অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে এবং সেগুলির কোনওটিই গুরুত্বপূর্ণ নয়৷ জার্মানি এবং ইইউ-এর জন্য ম্যানুফ্যাকচারিং পারচেজিং ম্যানেজারস ইনডেক্স (PMI) এর দ্বিতীয় অনুমান প্রকাশ করা হবে৷ এই প্রতিবেদনগুলো প্রাথমিক অনুমানের তুলনায় বস্তুনিষ্ঠভাবে কম গুরুত্বপূর্ণ। চূড়ান্ত অনুমান খুব কমই প্রাথমিক থেকে উল্লেখযোগ্যভাবে ভিন্ন হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ইনিশিয়াল জবলেস ক্লেইমস সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে, যা খুব কমই অনুরণিত ফলাফল দেখা যায় এবং খুব কমই মার্কেটে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। গতকাল, আমরা ইউরো এবং পাউন্ডের মূল্যের মোটামুটি ধারাবাহিক বৃদ্ধি দেখেছি; আজ, মার্কেটে উভয় পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টের "ন্যায্যতা পুনরুদ্ধার" শুরু হতে পারে। অন্তত, গতকালের পরে, আমরা ইউরোপীয় এবং ব্রিটিশ মুদ্রাগুলোর মূল্য বাড়াতে পারে এমন কোনও নতুন সহায়ক কারণ দেখিনি। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: আজকের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, আমরা ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ফিলিপ লেনের বক্তৃতার কথা তুলে ধরতে পারি। তিনি মার্কেটে কী ধরনের তথ্য সরবরাহ করতে পারেন তা বলা কঠিন। ইইউতে মুদ্রাস্ফীতি মন্থর হতে থাকে এবং কার্যত ইসিবির সকল কর্মকর্তারা জুন মাসে আর্থিক নীতিমালা নমনীয় করার জন্য সমর্থন প্রকাশ করেছেন। একই সময়ে, ফেডারেল রিজার্ভ সুদের হার কমানোর সময়কাল পিছিয়ে দিয়েছে, তাই আমরা এখনও মনে করি যে ডলারের বিপরীতে ইউরোর দরপতন হওয়া উচিত। উপসংহার: আজ, জার্মানি, ইইউ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বা যুক্তরাজ্যে কোন উল্লেখযোগ্য ইভেন্ট নির্ধারিত নেই। বুধবার উভয় কারেন্সি পেয়ার ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় ট্রেড করার পর, আমরা আশা করছি যে দরপতন হবে। আমরা মনে করি যে বৈঠকের পরে ফেডের অবস্থান অপরিবর্তিত ছিল, তাই মার্কেটে মার্কিন ডলার বিক্রির কোন ভিত্তি নেই। উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের কারেকশন হচ্ছে, কিন্তু এটি শেষ পর্যন্ত শেষ হবে। https://ifxpr.com/44njTHc
  13. ৩০ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবার বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে এবং সেগুলো বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। জার্মানিতে জিডিপি, খুচরা বিক্রয় এবং বেকারত্বের প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে৷ আগের মতোই, এই প্রতিবেদনগুলো কিছুটা গৌণ গুরুত্বসম্পন্ন, কিন্তু উল্লেখযোগ্য ফলাফলের ক্ষেত্রে, এই প্রতিবেদনগুলোর প্রভাবে মার্কেটে প্রতিক্রিয়া দখা যেতে পারে। জার্মানির জিডিপি প্রবৃদ্ধির মুখ দেখবে এই আশা করা কঠিন, তাই এই প্রতিবেদন থেকে ইউরোর সমর্থন পাওয়ার সম্ভাবনা কম। মঙ্গলবারের ইউরোপীয় সেশনের সময় ইউরোপীয় জিডিপি এবং মুদ্রাস্ফীতির পরিসংখ্যান প্রকাশিত হবে। নিঃসন্দেহে, এই প্রতিবেদনগুলো মার্কেটের ট্রেডারদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। মার্কেটের ট্রেডাররা ইউরোপীয় মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের উপর নজর রাখবে। এই সূচক এপ্রিলে 2.4% এর পূর্বাভাস অতিক্রম না করলে, ইউরোর শক্তিশালী হওয়ার কোন কারণ নেই। যদি এই সূচক ত্বরান্বিত হয়, তাহলে ইউরোর ঊর্ধ্বমুখী কারেকশন চলমান থাকতে পারে, কারণ এই ক্ষেত্রে, ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক জুন থেকে জুলাই পর্যন্ত আর্থিক নীতিমালার প্রথম নমনীয়করণ কার্যক্রম স্থগিত করতে পারে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবার কোন উল্লেখযোগ্য ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট নেই; ক্যালেন্ডারে ইসিবি, ফেডারেল রিজার্ভ বা ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের কর্মকর্তাদের কোনো বক্তৃতা নেই। দিনের বেলায় নিশ্চয়ই বেশ কিছু বক্তৃতা হবে, কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে নতুন তথ্য আশা করা খুবই কঠিন। আমরা আশা করি না যে কর্মকর্তারা এই মুহূর্তে তাদের অবস্থান পরিবর্তন করবেন। উপসংহার: আজ, নতুন ট্রেডারদের ইউরোজোনের মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত। যদি এর মান পূর্বাভাসের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হয় বা সামান্য বিচ্যুতি থাকে তবে মার্কেটে দুর্বল প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। একই সময়ে, এই অঞ্চলের মুদ্রাস্ফীতি ত্বরান্বিত হলে সেটি ইউরোর দর বৃদ্ধির কারণ হতে পারে, যখন মুদ্রাস্ফীতি মন্থর হলে ইউরোর মূল্য হ্রাস পেতে পারে। দিনের অন্যান্য প্রতিবেদন তুলনামূলক কম তাৎপর্যপূর্ণ। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/4dlyPK4
  14. ২৯ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: সোমবারে কার্যত তেমন কোন সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদন প্রকাশের কথা নেই। আমরা শুধুমাত্র জার্মান মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের কথা তুলে ধরব কারণ মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদন বর্তমানে মার্কেটের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ। এটি ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুদ্রাস্ফীতির মাত্রা নির্ধারণে একটি মূল সূচক। যদি এপ্রিল মাসে জার্মানি বা ইইউতে মুদ্রাস্ফীতি না বাড়ে, তবে জুনে ইসিবির সিদ্ধান্তে সুদের হার হ্রাস সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে। জার্মানির মুদ্রাস্ফীতি সূচকে সামান্য বৃদ্ধির প্রত্যাশা করা হচ্ছে, এই সূচক 2.3% এ আসবে বলে ধারণা করা হচ্ছে যা আগের 2.2% থেকে উল্লেখযোগ্যভাবে আলাদা নয়৷ অতএব, যে কোনো ক্ষেত্রে, সূচকটি লক্ষ্যমাত্রার খুব কাছাকাছি থাকবে, যা ইসিবিকে আর্থিক নীতি নমনীয় শুরু করার সুযোগ দেবে। যদি মুদ্রাস্ফীতি তীব্রভাবে বেড়ে যায়, তাহলে ইউরোর মূল্যের নতুন উত্থান আশা করা উচিত, কারণ এই ক্ষেত্রে, ইসিবি জুনে সুদের হার হ্রাসের কার্যক্রম স্থগিত করতে পারে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: শুক্রবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, শুধুমাত্র ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট লুইস ডি গুইন্ডোসের একটি বক্তৃতা ছিল। যাইহোক, আমরা ইতোমধ্যেই উল্লেখ করেছি যে মার্কেটের ট্রেডারদের মধ্যে ইসিবির আর্থিক নীতি সম্পর্কে খুব বেশি প্রশ্ন নেই, তাই আমরা আশা করি না যে ইসিবির ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্কেটের ট্রেডারদের নতুন বা উল্লেখযোগ্য কোন তথ্য সরবরাহ করবেন। উভয় পেয়ারের মূল্যের বুলিশ কারেকশন চলমান রয়েছে, এবং এটি এই মুহূর্তে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই পেয়ারের মূল্যের নিম্নমুখী প্রবণতা এখনও শেষ হয়নি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিতব্য প্রতিবেদনের দুর্বল ফলাফল দেখা গেলেও সেটি ডলারের মূল্যের উত্থান বন্ধ করা উচিত নয়। উপসংহার: আজ, নতুন ট্রেডারদের জার্মানির মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদনের দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত। ইউরোর জন্য, প্রযুক্তিগত চিত্র এই মুহূর্তে স্পষ্ট; একটি অ্যাসেন্ডিং চ্যানেল যা স্পষ্টভাবে মূল্যের রেঞ্জ এবং দিক প্রদর্শন করছে যেখানে এই পেয়ার অদূর ভবিষ্যতে ট্রেড করতে পারে। পাউন্ডের জন্য, যথারীতি, পরিস্থিতি আরও জটিল, তবে পাউন্ডের মূল্যেরও কারেকশন দেখা যাচ্ছে। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/4aSVUlH
  15. ২৩ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবারের মৌলিক ইভেন্টের মধ্যে, শুধুমাত্র ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের সদস্য হু পিলের বক্তব্যের দিকে মনোযোগ দেয়া যেতে পারে। ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের কর্মকর্তাগণ সাধারণত ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাঙ্ক বা ফেডারেল রিজার্ভের কর্মকর্তাগণদের চেয়ে বেশি প্রশ্নের সম্মুখীন হয়ে থাকেন, তাই পিল এমন তথ্য প্রদান করতে পারে যা ট্রেডাররা এখনও জানেন না। যাইহোক, পিলের বিবৃতির প্রভাবে মার্কেটে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ার আশা করা উচিত নয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের বক্তৃতা সাধারণত মার্কেট সেন্টিমেন্টের প্রেক্ষাপটে প্রভাব ফেলে। যেকোন পরিস্থিতি নির্বিশেষে পাউন্ডের মূল্যের হ্রাস অব্যাহত থাকা উচিত। এদিকে, ইউরোর মূল্য বর্তমানে একটি সাইডওয়েজ চ্যানেলে রয়েছে এবং আজ ইউরোর মূল্যের পক্ষে এই এরিয়া থেকে বেরিয়ে আসা কঠিন হবে। উপসংহার: আজ, নতুন ট্রেডারদের PMI প্রতিবেদনের ফলাফলের মনোযোগ দেওয়া উচিত। এই রিপোর্টগুলোর ফলাফল পূর্বাভাসের সাথে মিলে যেতে পারে বা প্রায় মিলে যেতে পারে৷ এই ক্ষেত্রে, মার্কেটে খুব বেশি প্রতিক্রিয়ার আশা করা উচিত নয়। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3xNWtyt
  16. ১৭ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিসhttps://ifxpr.com/3U4D2Zw সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: বুধবার অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে, কিন্তু সেগুলোর মধ্যে মাত্র একটিকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা যায়। ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোন আকর্ষণীয় প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে না। তবে যুক্তরাজ্যে মার্চ মাসের মূল্যস্ফীতির প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। এটা এতো গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে কেন বিবেচনা করা হবে? যুক্তরাজ্যে মুদ্রাস্ফীতি 3.1% এ নেমে যেতে পারে। যদি এটি ঘটে তবে যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় কম হবে। সুতরাং, ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড অদূর ভবিষ্যতে মুদ্রানীতির নমনীয়করণ নিয়ে আলোচনা শুরু করতে পারে। মনে করে দেখুন যে এর আগে মার্কেটের ট্রেডাররা আশা করেছিল যে ফেডারেল রিজার্ভ প্রথম কেন্দ্রীয় ব্যাংক হিসেবে সুদের হার কমবে। যাইহোক, বস্তুনিষ্ঠ বাস্তবতা অনুযায়ী ব্যাংক অব ইংল্যান্ড প্রথমে এ ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে। অতএব, মুদ্রাস্ফীতি 3.1% বা তার নিচে নেমে গেলে ব্রিটিশ মুদ্রার মারাত্মক দরপতন ঘটতে পারে।ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বুধবার বেশ কয়েকটি ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। প্রথমত, ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর অ্যান্ড্রু বেইলি বক্তব্য দেবেন। গতকাল তিনি গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রকাশ না করলেও আজ পরিস্থিতি বদলে যেতে পারে। দ্বিতীয়ত, ইউরোপে, ইসাবেল শ্নাবেল বক্তব্য দেবেন, যিনি নিশ্চিত করতে পারেন যে ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক জুনে আর্থিক নীতিমালার নমনীয়করণ শুরু করতে প্রস্তুত। তৃতীয়ত, ফেডারেল রিজার্ভের সদস্য লরেটা মেস্টার এবং মিশেল বোম্যান বক্তৃতা প্রদান করবেন, যারা সর্বশেষ মার্কিন মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদন নিয়ে মন্তব্য করতে পারেন। যাইহোক, আজকের মূল প্রতিবেদন হল যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদন। উপসংহার: আজ, একটি মাত্র গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে। প্রায় সব বক্তৃতাই সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হবে বলে নির্ধারিত হয়েছে, তাই দিনের বেলা এগুলো কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টের কোন প্রভাব ফেলবে না। যাইহোক, ব্রিটেনের মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদন GBP/USD পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করতে পারে। আমরা পাউন্ড দরপতনের আশা করছি। https://ifxpr.com/3U4D2Zw
  17. ১৬ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/1210086045.jpg সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবারের জন্য অল্প কয়েকটি সামষ্টিক প্রতিবেদনের প্রকাশনা নির্ধারিত আছে, তবে তার মধ্যে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে। ইউরোপীয় ইউনিয়নে, ইউরোজোন এবং জার্মানির ZEW ইনস্টিটিউটের ইকোনোমিক সেন্টিমেন্ট ইনডেক্স ট্রেডারদের উদ্দীপনা প্রদান করতে পারে। যদিও এই প্রতিবেদনগুলোকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়, তবে ট্রেডাররা সাধারণত এই প্রতিবেদনের ফলাফলের প্রতি হয় দুর্বল প্রতিক্রিয়া দেখায় বা উপেক্ষা করে। যুক্তরাজ্যে, বেকারত্বের হার, জবলেস ক্লেইমস এবং মজুরি সম্পর্কিত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। এগুলো গুরুত্বপূর্ণ সূচক নয় এবং শুধুমাত্র স্থানীয়ভাবে বাজারে প্রতিক্রিয়া উস্কে দিতে পারে। সবশেষে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিল্ডিং পারমিট, নিউ হোম সেলস এবং শিল্প উৎপাদন সম্পর্কিত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। তিনটি প্রতিবেদনই গুরুত্বের দিক থেকে গৌণ হিসেবে বিবেচনা করা যায়। যেহেতু এই মুহূর্তে ইউরো এবং পাউন্ডের মূল্যের নিম্নমুখী প্রবণতা গঠিত হচ্ছে, তাই আমরা ধারণা করছি যে উপরে উল্লিখিত কোন প্রতিবেদনই মার্কেট সেন্টিমেন্টের পরিবর্তন ঘটাতে সক্ষম হবে না। সামষ্টিক প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে উভয় পেয়ারের মূল্যই আজ বাড়তে পারে, তবে আমরা ভবিষ্যতে আরও নিম্নগামী মুভমেন্টের আশা করছি। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবার দুটি ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। ফেডারেল রিজার্ভের কর্মকর্তা মেরি ডালি এবং ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডের গভর্নর অ্যান্ড্রু বেইলির বক্তৃতা প্রদান করবেন৷ উভয় বক্তৃতাই গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। ফেডের কর্মকর্তারা এই সপ্তাহে সর্বশেষ মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদনের ব্যাপারে মন্তব্য করতে পারেন, এবং তাদের বিবৃতি ডোভিশ বা নমনীয় হওয়ার সম্ভাবনা নেই, এবং এটি মার্কিন ডলারকে সমর্থন করবে। বেইলি খুব কমই কথা বলেন, তাই তার বক্তব্য সবসময়ই আকর্ষণীয়। এটা অসম্ভব্য যে তিনি পাউন্ডকে দরপতন থেকে রক্ষা করতে সক্ষম হবেন, কারণ তার কাছ থেকে হকিশ বা কঠোর বিবৃতি পাওয়ার সম্ভাবনা আছে। উপসংহার: আজ, যে প্রতিবেদনগুলো প্রকাশিত হবে ও বক্তব্য রয়েছে সেগুলো উভয় পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টের উপর খুব বেশি প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না। অতএব, সারাদিনে, আমরা অসংখ্যবার মূল্য বিপরীতমুখী হওয়া এবং পুলব্যাক দেখতে পারি যেগুলি সামগ্রিক নিম্নমুখী প্রবণতাকে প্রভাবিত করার সম্ভাবনা কম। দিনের মূল ইভেন্ট হল বেইলির বক্তৃতা, যা সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হবে বলে নির্ধারিত রয়েছে। যাই হোক না কেন, আমরা আশা করছি যে ইউরো এবং পাউন্ডের মধ্যমেয়াদী দরপতন অব্যাহত থাকবে। https://ifxpr.com/4aVpNRJ
  18. ৪ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/1746405823.jpg হস্পতিবার বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে এবং সেগুলির কোনওটিই খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়। আমরা এই সপ্তাহের ব্যাপারে মোটামুটি আশাবাদী ছিলাম। এটি বেশ ভালভাবেই শুরু হয়েছিল - মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ISM থেকে উৎপাদন সংক্রান্ত PMI প্রতিবেদনের শক্তিশালী ফলাফলের কারণে সোমবার ডলারের দর বেড়েছে। কিন্তু তারপরও এমন কিছু দিন দেখা গিয়েছে যখন মার্কেটের মুভমেন্ট এবং সামষ্টিক অর্থনীতির পটভূমির প্রতিক্রিয়াগুলো বেশ অযৌক্তিক ছিল। আজ, নতুন ট্রেডাররা শুধুমাত্র ইইউ-এর PMI প্রতিবেদন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রাথমিক জবলেস ক্লেইমসের মতো স্বল্প গুরত্বসম্পন্ন প্রতিবেদনগুলোর প্রতি মনোযোগ দিতে পারে। স্পষ্টতই, এই প্রতিবেদনগুলোর ফলাফল উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে খুব একটা প্রভাবিত করবে না। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বুধবারের জন্য নির্ধারিত মোট পাঁচটি ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। ফেডারেল রিজার্ভের আর্থিক কমিটির পাঁচজন সদস্য কথা বলবেন, তবে তারা সবাই সন্ধ্যায় বা রাতে বক্তব্য দেবেন। অতএব, তাদের বক্তব্য দিনের বেলায় ডলারের উপর প্রভাব ফেলবে না। আপনি টমাস বারকিন, লেল ব্রেইনার্ড এবং লরেটা মেস্টারের বক্তৃতার দিকে দৃষ্টি রাখতে পারেন। যাইহোক, সম্প্রতি ফেডের প্রতিনিধিগণ যথেষ্ট বক্তৃতা দিয়েছেন, এমনকি জেরোম পাওয়েলও এই সপ্তাহের শুরুতে বক্তব্য দিয়েছেন। বাজারের ট্রেডাররা 2024 সালে বেশ কয়েকবার (তিনবার) সুদের হার কমবে বলে ধারণা করছেন, তবে এটিকে ডোভিশ বা নমনীয় অবস্থান হিসাবে আগেই বিবেচনা করা যাবে না, কারণ তারা প্রাথমিকভাবে 0.25% করে 5-6 ধাপে সুদের হার কমার প্রত্যাশা করছে। উপসংহার: আজ, কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে ও ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। আমরা এই পেয়ারের মূল্যের স্বল্প মাত্রার অস্থিরতার আশা করছি, এবং ইউরো এবং পাউন্ডের দর বৃদ্ধির দুই দিন পরে, বিয়ারিশ কারেকশন ঘটতে পারে। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3vLMHfp
  19. ৪ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/1746405823.jpg হস্পতিবার বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে এবং সেগুলির কোনওটিই খুব বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়। আমরা এই সপ্তাহের ব্যাপারে মোটামুটি আশাবাদী ছিলাম। এটি বেশ ভালভাবেই শুরু হয়েছিল - মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ISM থেকে উৎপাদন সংক্রান্ত PMI প্রতিবেদনের শক্তিশালী ফলাফলের কারণে সোমবার ডলারের দর বেড়েছে। কিন্তু তারপরও এমন কিছু দিন দেখা গিয়েছে যখন মার্কেটের মুভমেন্ট এবং সামষ্টিক অর্থনীতির পটভূমির প্রতিক্রিয়াগুলো বেশ অযৌক্তিক ছিল। আজ, নতুন ট্রেডাররা শুধুমাত্র ইইউ-এর PMI প্রতিবেদন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রাথমিক জবলেস ক্লেইমসের মতো স্বল্প গুরত্বসম্পন্ন প্রতিবেদনগুলোর প্রতি মনোযোগ দিতে পারে। স্পষ্টতই, এই প্রতিবেদনগুলোর ফলাফল উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে খুব একটা প্রভাবিত করবে না। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বুধবারের জন্য নির্ধারিত মোট পাঁচটি ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। ফেডারেল রিজার্ভের আর্থিক কমিটির পাঁচজন সদস্য কথা বলবেন, তবে তারা সবাই সন্ধ্যায় বা রাতে বক্তব্য দেবেন। অতএব, তাদের বক্তব্য দিনের বেলায় ডলারের উপর প্রভাব ফেলবে না। আপনি টমাস বারকিন, লেল ব্রেইনার্ড এবং লরেটা মেস্টারের বক্তৃতার দিকে দৃষ্টি রাখতে পারেন। যাইহোক, সম্প্রতি ফেডের প্রতিনিধিগণ যথেষ্ট বক্তৃতা দিয়েছেন, এমনকি জেরোম পাওয়েলও এই সপ্তাহের শুরুতে বক্তব্য দিয়েছেন। বাজারের ট্রেডাররা 2024 সালে বেশ কয়েকবার (তিনবার) সুদের হার কমবে বলে ধারণা করছেন, তবে এটিকে ডোভিশ বা নমনীয় অবস্থান হিসাবে আগেই বিবেচনা করা যাবে না, কারণ তারা প্রাথমিকভাবে 0.25% করে 5-6 ধাপে সুদের হার কমার প্রত্যাশা করছে। উপসংহার: আজ, কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে ও ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। আমরা এই পেয়ারের মূল্যের স্বল্প মাত্রার অস্থিরতার আশা করছি, এবং ইউরো এবং পাউন্ডের দর বৃদ্ধির দুই দিন পরে, বিয়ারিশ কারেকশন ঘটতে পারে। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3vLMHfp
  20. ২ এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/2144803383.jpg সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবারের জন্য নির্ধারিত বেশ কিছু সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে। যাইহোক, সোমবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গুরুত্বপূর্ণ আইএসএম ম্যানুফ্যাকচারিং পিএমআই প্রকাশিত হয়েছিল, যার প্রভাবে উভয় কারেন্সি পেয়ারের উল্লেখযোগ্য দরপতন ঘটেছিল। মঙ্গলবার, দুটির বেশি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশিত হবে না। তাই আজ, আমরা জার্মানির ভোক্তা মূল্য সূচক এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জব ওপেনিং সংক্রান্ত JOLT-এর রিপোর্টের দিকে দৃষ্টি রাখব। প্রথম প্রতিবেদনটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ জার্মানির মুদ্রাস্ফীতি 2.2% এ নেমে আসতে পারে। ইউরোজোনের মুদ্রাস্ফীতি বর্তমানে 2.6% এ রয়েছে, কিন্তু জার্মানিতে মুদ্রাস্ফীতি হ্রাস পেলে ইইউ-এর মুদ্রাস্ফীতিও কমতে থাকবে। ইইউ-এর মুদ্রাস্ফীতি আরও কমে গেলে ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাংক প্রথমবারের মতো সুদের হার কমাতে পারে। অতএব, এই প্রতিবেদনটির প্রভাবে ইউরোর নতুন দরপতন ঘটতে পারে, যা সম্পূর্ণ যৌক্তিক হবে। JOLTs রিপোর্ট সাধারণত গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এই প্রতিবেদনের শক্তিশালী ফলাফল ডলারকে সমর্থন করবে, যখন দুর্বল ফলাফল দেখা গেলে সেটি ইউরো এবং পাউন্ডকে সমর্থন করবে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: মঙ্গলবারের ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের মধ্যে, আমরা ফেডারেল রিজার্ভ প্রতিনিধি মিশেল বোম্যান, লরেটা মেস্টার এবং মেরি ডালির বক্তৃতার কথা তুলে ধরব৷ এই কর্মকর্তারা সম্ভবত হকিশ বা কঠোর অবস্থান গ্রহণ করবেন, তাই ডলারের দর আজ বাড়তে পারে। অধিকন্তু, এটি অসম্ভব যে তাদের বক্তৃতার প্রভাবেই ডলারের মূল্য বাড়বে। বরং, তাদের বক্তব্য সামগ্রিক মৌলিক পটভূমিকে প্রভাবিত করবে - মার্কেটের ট্রেডাররা এ বিষয়ে আরও বেশি নিশ্চিত হয়ে উঠবে যে ফেড অদূর ভবিষ্যতে আর্থিক নীতিমালার নমনীয়করণ শুরু করার পরিকল্পনা করছে না। উপসংহার: মঙ্গলবার বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সামষ্টিক অর্থনৈতিক ও ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। নতুন ট্রেডারদের জার্মানির মুদ্রাস্ফীতির তথ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের JOLT-এর পরিসংখ্যানের প্রতি মনোযোগ দেওয়া উচিত। এই প্রতিবেদনগুলো ISM সূচকের মতো গুরুত্বপূর্ণ নয়, তবে সেগুলো এখনও উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে প্রভাবিত করতে পারে। এবং আমরা আশা করি যে উভয় ইন্সট্রুমেন্টের মূল্য আরও কমবে। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3PH1S0s
  21. পহেলা এপ্রিলের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/1934172059.jpg সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: সোমবার অল্প কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে। আমরা শুধুমাত্র মার্কিন আইএসএম ম্যানুফ্যাকচারিং পিএমআই সম্পর্কিত মার্কিন প্রতিবেদনটির কথা তুলে ধরব। মনে রাখবেন যে ISM সূচক বেশ গুরুত্বপূর্ণ সূচক এবং প্রায়শই মার্কেটে শক্তিশালী প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে, বিশেষ করে যদি ফলাফল পূর্বাভাসের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ না হয়। যাইহোক, আমরা উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের উল্লেখযোগ্য স্বল্প মাত্রার অস্থিরতার মধ্যে শক্তিশালী মুভমেন্টের আশা করছি না। মার্কেটের ট্রেডাররা গত মাস থেকেই স্পষ্টভাবে ট্রেডিং থেকে বিরতি নিয়েছে, তাই ISM সূচক প্রকাশের সময় সংক্ষিপ্তভাবে অস্থিরতার মাত্রা বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে, বাকি সময় আমরা একই ধরনের দুর্বল মুভমেন্টের পর্যবেক্ষণ করতে থাকব। http://forex-bangla.com/customavatars/585837673.jpg ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: আজ কোন ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট নেই। যাইহোক, আমরা লক্ষ্য করেছি যে শুক্রবার ফেডারেল রিজার্ভের প্রধান জেরোম পাওয়েলের বক্তৃতা প্রভাবে মার্কেটে কোন প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়নি। অতএব, এই মুহূর্তে যেকোন ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের তাৎপর্য খুব কমই ধরে নেয়া যেতে পারে। প্রাথমিক সমস্যা হল মার্কেটে ট্রেড করার ইচ্ছা প্রায় নেই বললেই চলে। যদি কোন মুভমেন্ট না সৃষ্টি হয়, তাহলে কোন ইভেন্ট বা রিপোর্ট এতে সাহায্য করবে না। উপসংহার: সোমবার, অল্প কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সামষ্টিক অর্থনৈতিক ও মৌলিক ইভেন্ট রয়েছে। নতুন ট্রেডারদের মার্কিন আইএসএম সূচকের দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত, কিন্তু তার আগে, আমরা পাউন্ডের জন্য একই ধরনের স্বল্প-অস্থিরতাসম্পন্ন ফ্ল্যাট ফেজ এবং ইউরোর জন্য দুর্বল নিম্নগামী মুভমেন্টের আশা করি। সপ্তাহের বাকি অংশে আরও অনেক সংবাদ এবং প্রতিবেদন থাকবে, তাই আমরা সোমবার উভয় পেয়ারের মূল্যের আকর্ষণীয় মুভমেন্টের আশা করছি না। উপসংহার: সোমবার, অল্প কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সামষ্টিক অর্থনৈতিক ও মৌলিক ইভেন্ট রয়েছে। নতুন ট্রেডারদের মার্কিন আইএসএম সূচকের দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত, কিন্তু তার আগে, আমরা পাউন্ডের জন্য একই ধরনের স্বল্প-অস্থিরতাসম্পন্ন ফ্ল্যাট ফেজ এবং ইউরোর জন্য দুর্বল নিম্নগামী মুভমেন্টের আশা করি। সপ্তাহের বাকি অংশে আরও অনেক সংবাদ এবং প্রতিবেদন থাকবে, তাই আমরা সোমবার উভয় পেয়ারের মূল্যের আকর্ষণীয় মুভমেন্টের আশা করছি না। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত। 3) ফ্ল্যাট মার্কেটের সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। চার্ট কীভাবে বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল হবে। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সিগন্যাল লাইন নিয়ে গঠিত। যখন মূল্য এগুলো অতিক্রম করে, সেটি মার্কেটে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3VGZniy
  22. ২৭ মার্চের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/2120392227.jpg বুধবারের অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডার অনুযায়ী কার্যত কোন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশের কথা নেই। এমনকি গৌণ গুরুত্বসম্পন্ন প্রতিবেদন প্রকাশেরও কথা নেই। ফলে, আজ আমরা উভয় পেয়ারের মূল্যের অস্থিরতার মাত্রা হ্রাস পাওয়ার আশা করতে পারি। আমরা লক্ষ্য করেছি যে এই সপ্তাহে মার্কেটে ট্রেডাররা মোটেও সক্রিয় ছিল না। কিন্তু অন্তত সোমবার এবং মঙ্গলবার, ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাংক এবং ফেডারেল রিজার্ভ প্রতিনিধিদের বেশ কয়েকটি বক্তৃতা ছিল, সেইসাথে মার্কিন ডিউরেবল গুডস অর্ডার সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছিল। আজ, সেরকম কিছুই নেই। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: আজ কোনো ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টও নেই। সম্ভবত, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা দিনের বেলায় বক্তব্য দিতে পারেন, তবে এই ধরনের অনির্ধারিত বক্তৃতা ক্যালেন্ডারে প্রদর্শিত হয় না। ক্যালেন্ডারে সাধারণত কর্মকর্তাদের নির্ধারিত বক্তৃতা যুক্ত থাকে, কিন্তু বিভিন্ন রেডিও সম্প্রচার বা পডকাস্টে সাক্ষাৎকার বা অংশগ্রহণের মতো বক্তব্য ক্যালেন্ডারে যুক্ত থাকে না। তবে যেকোনো অবস্থাতেই মার্কেটের ট্রেডাররা এই সময়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের কাছ থেকে কোনো গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের আশা করছে না। উপসংহার: বুধবার কার্যত কোন সামষ্টিক অর্থনৈতিক বা মৌলিক ইভেন্ট নেই। উভয় পেয়ারের মূল্যের অস্থিরতার মাত্রা সম্ভবত দুর্বল থাকবে, এবং ঊর্ধ্বমুখী কারেকশন হতে পারে। যাইহোক, যেহেতু নিম্নমুখী প্রবণতা অটুট রয়েছে, আমরা মনে করি যে আপনার নতুন সেল সিগন্যালের সন্ধান করা উচিত। এবং যেহেতু উভয় পেয়ারের মূল্যের নিম্নমুখী প্রবণতা বিরাজ করছে করছে, তাই যেকোনো কারেকশন ধরনের মুভমেন্টের চেয়ে চলমান প্রবণতাই শক্তিশালী হওয়ার ভাল সুযোগ রয়েছে। যাইহোক, সমস্যা হল এই মুহূর্তে কোন বিশেষভাবে কার্যকর সেল সিগন্যাল নেই। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত।] 3) ফ্ল্যাট প্রবণতার সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সিগন্যালের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো ওপেন করা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপস পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। http://forex-bangla.com/customavatars/1643616643.jpg কীভাবে চার্ট বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সংকেত লাইন নিয়ে গঠিত। যখন এগুলো অতিক্রম করা হয়, সেটি বাজারে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/3IShrhQ
  23. ২১ মার্চের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/528905340.jpg বৃহস্পতিবার বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে, তবে সেগুলোর সবগুলোই ফেডারেল রিজার্ভের বৈঠক (যা গতকাল সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল) এবং ব্যাঙ্ক অফ ইংল্যান্ডের বৈঠকের (আজকের জন্য নির্ধারিত) ফলাফলের আড়ালে পড়ে যাবে৷ বাজারের ট্রেডারদের প্রায় 80% মনোযোগ এই দুটি ইভেন্টের দিকে থাকবে। তবুও, ইউরোপীয় অঞ্চল, জার্মানি, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পারচেজিং ম্যানেজার ইনডেক্সের (PMI) প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। বাজারের ট্রেডাররা এই সূচকের কোনো উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের আশা করছেন না, তবে এই সূচকগুলোর পূর্বাভাস ও প্রকাশিত ফলাফলের উল্লেখযোগ্য ভিন্নতার ক্ষেত্রে, কোন কোনো নির্দিষ্ট প্রতিবেদন বাজারে লক্ষণীয় প্রতিক্রিয়া উস্কে দিতে পারে। এছাড়াও, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ফিলাডেলফিয়ার বিজনেস অ্যাক্টিভিটি এবং প্রাথমিক জবলেস ক্লেইমস সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হবে। এই প্রতিবেদনগুলোর মার্কেট সেন্টিমেন্টকে প্রভাবিত করার সম্ভাবনা কম। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বৃহস্পতিবারের জন্য শুধুমাত্র একটি ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট নির্ধারিত আছে এবং সেটি হচ্ছে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠকো। আমরা গতকাল সন্ধ্যায় প্রত্যক্ষ করেছি, কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুদ্রানীতি পরিবর্তন না করলেও সেটি বাজারে বিস্ময়কর প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। যেহেতু যুক্তরাজ্যের সর্বশেষ মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনে উল্লেখযোগ্য হ্রাস দেখা গেছে, তাই আজ আমরা ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের গভর্নর অ্যান্ড্রু বেইলি এবং পুরো আর্থিক কমিটির কাছ থেকে নমনীয় অবস্থান গ্রহণ করার ইঙ্গিতের আশা করতে পারি। যাইহোক, একই সময়ে, তাদের অবস্থান অপরিবর্তিত থাকতে পারে, কারণ মূল্যস্ফীতি প্রতিবেদনটি গতকাল প্রকাশিত হয়েছিল এবং এর মান লক্ষ্য মাত্রা থেকে এখনও অনেক দূরে। পরিস্থিতির উপর সার্বিক প্রতিক্রিয়া নির্ভর করবে। উপসংহার: আজ বিশ্বব্যাপী অনেকগুলো ইভেন্ট রয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই, বাজারের ট্রেডাররা ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠকের ফলাফলের উপর দৃষ্টি রাখবে, কারণ এর ফলাফল EUR/USD পেয়ারকেও প্রভাবিত করতে পারে। যাইহোক, নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে বিজনেস অ্যাক্টিভিটি ইনডেক্সও উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের মুভমেন্টকে প্রভাবিত করতে পারে। গতকাল, ইউরো এবং পাউন্ডের মূল্যের নতুন ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা পরিলক্ষিত হয়েছে, কিন্তু আমরা এখনও নিশ্চিত নই যে এটি সত্যিই কোন প্রবণতা নাকি কেবলই সাধারণ একটি রিট্রেসমেন্ট। https://ifxpr.com/3TK8gGn
  24. ২০ মার্চের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/1715976408.jpg বুধবার বেশ কয়েকটি সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট রয়েছে। যুক্তরাজ্যে আমরা শুধুমাত্র দেশটির মুদ্রাস্ফীতির প্রতিবেদনের কথা তুলে ধরব। ব্রিটিশ মুদ্রার জন্য এই প্রতিবেদনটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। গত ছয় মাস ধরে, পাউন্ডের দাম বাড়ছে বা স্থিতিশীল রয়েছে। ব্রিটিশ মুদ্রার চাহিদা ধারাবাহিকভাবে বেশি রয়ে গেছে। অতএব, যদি যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি কমে যায়, তাহলে এটি পাউন্ডের ক্রেতাদের উৎসাহকে কমিয়ে দিতে পারে, কারণ ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড আর্থিক নীতিমালা নমনীয় করতে পারে। আগামীকাল ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সুতরাং, যদি দেশটির মুদ্রাস্ফীতি 3.5% বা তার কম হয়, তাহলে এটি পাউন্ডের উপর উল্লেখযোগ্য চাপ সৃষ্টি করতে পারে। বিপরীতভাবে, দেশটির মুদ্রাস্ফীতি সামান্য হ্রাস পেলে ব্রিটিশ মুদ্রার মূল্য বেড়ে যেতে পারে। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: বুধবারের জন্য নির্ধারিত শুধুমাত্র একটি ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট রয়েছে। কিন্তু এটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট! সন্ধ্যায়, FOMC বা ফেডারেল ওপেন মার্কেট কমিটির বৈঠকের ফলাফল এবং সুদের হার সম্পর্কিত মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হবে। যাইহোক, এখানে কোন ধোঁয়াশা নেই, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সুদের হার অপরিবর্তিত থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে। যাইহোক, এরপর, ফেডারেল রিজার্ভের চেয়ারম্যান জেরোম পাওয়েলের একটি প্রেস কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হবে এবং সবশেষে, আর্থিক কমিটির সদস্যরা সুদের হার সম্পর্কে তাদের পূর্বাভাস উপস্থাপন করবেন। যদি তারা আরও হকিশ বা কঠোর অবস্থান গ্রহণ করে (2024 সালে স্বল্প মাত্রায় সুদের হার কমানোর ইঙ্গিত দেয়), তাহলে এটি মার্কিন ডলারকে সমর্থন করবে। উপসংহার: আজ, আমরা আশা করছি যে উভয় ইন্সট্রুমেন্টের নিম্নগামী মুভমেন্ট চলমান থাকবে, তবে সবকিছুই FOMC-এর বৈঠকের ফলাফল এবং যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি প্রতিবেদনের উপর নির্ভর করবে। আমরা মনে করি যে মাঝারি মেয়াদে ডলারের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়া উচিত, কিন্তু আজ, উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যও বাড়তে পারে। https://ifxpr.com/49WHEYs
  25. ১৮ মার্চের মূল ইভেন্ট: নতুন ট্রেডারদের জন্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালাইসিস http://forex-bangla.com/customavatars/2106081675.jpg সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের বিশ্লেষণ: সোমবার খুব বেশি কোনো সামষ্টিক অর্থনৈতিক ইভেন্ট নেই। আমরা শুধুমাত্র ইউরোজোন ভোক্তা মূল্য সূচকের কথা তুলে ধরব, কিন্তু আমরা বাজারে শক্তিশালী প্রতিক্রিয়ার আশা করছি না কারণ এটি এই প্রতিবেদনের দ্বিতীয় পূর্বাভাস। সাধারণত এই সূচকের দ্বিতীয় পূর্বাভাস প্রথমটির থেকে খুব কমই আলাদা হয়ে থাকে। যাইহোক, যদি সোমবার এই সূচকের দ্বিতীয় পূর্বাভাসে প্রথমটির তুলনায় ব্যতিক্রম দেখা যায়, তাহলে আমরা ইউরোর মূল্যের সামান্য মুভমেন্ট দেখতে পারি। জার্মানি, যুক্তরাজ্য বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কোনো গুরুত্বপূর্ণ প্রতিবেদন প্রকাশের পরিকল্পনা করা হয়নি। ফান্ডামেন্টাল ইভেন্টের বিশ্লেষণ: আজকের জন্য পরিকল্পিত একমাত্র ফান্ডামেন্টাল ইভেন্ট হল ইউরোপীয় সেন্ট্রাল ব্যাংক গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য ক্লডিয়া বুচের বক্তৃতা। যাইহোক, যেমনটি আমরা আগে উল্লেখ করেছি, আমরা এই সময়ে ইসিবির প্রতিনিধিদের কাছ থেকে উল্লেখযোগ্য বা নতুন তথ্য আশা করি না। ইসিবির বৈঠক ইতোমধ্যেই অনুষ্ঠিত হয়েছে, এবং ক্রিস্টিন লাগার্ড বাজারে সমস্ত প্রয়োজনীয় এবং প্রাসঙ্গিক তথ্য প্রদান করেছে। ইসিবি কর্মকর্তাদের সাম্প্রতিক ধারাবাহিক বক্তৃতা বাজারে কোনো আগ্রহ সৃষ্টি করেনি। অতএব, এটি অসম্ভব যে বুচ ট্রেডারদের নতুন এবং গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সরবরাহ করতে সক্ষম হবেন। উপসংহার: আজ, আমরা আশা করছি যে উভয় ইন্সট্রুমেন্টের মূল্যের নিজ নিজ নিম্নগামী মুভমেন্ট চলমান থাকবে, তবে আমরা এই পেয়ারের মূল্যের স্বল্প অস্থিরতার আশা করি। উভয় কারেন্সি পেয়ারের মূল্যের শুধুমাত্র প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণের উপর ভিত্তি করে বলা যায় নিম্নমুখী মোমেন্টাম প্রসারিত হতে পারে, কিন্তু যদি শুধুমাত্র 20-30 পিপসের মুভমেন্ট দেখা যায়, তাহলে লাভের আশা করা কঠিন হবে। যখন অস্থিরতার মাত্রা মাঝারি বা উচ্চ স্তরে থাকে তখনই আমরা শক্তিশালী ট্রেডিং সিগন্যাল এবং লাভের আশা করতে পারি। ট্রেডিং সিস্টেমের মূল নিয়মাবলী: 1) সিগন্যাল গঠন করতে কতক্ষণ সময় নেয় তার উপর ভিত্তি করে সিগন্যালের শক্তি নির্ধারণ করা হয় (রিবাউন্ড বা লেভেলের ব্রেকআউট)। যত দ্রুত এটি গঠিত হয়, সিগন্যাল তত শক্তিশালী হয়। 2) যদি ফলস সিগন্যালের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট লেভেলের কাছাকাছি দুটি বা ততোধিক পজিশন খোলা হয় (যা টেক প্রফিট শুরু করেনি বা নিকটতম লক্ষ্যমাত্রায় পৌছায়নি), তাহলে এই লেভেলে প্রাপ্ত পরবর্তী সমস্ত সিগন্যাল উপেক্ষা করা উচিত।] 3) ফ্ল্যাট প্রবণতার সময়, যেকোন পেয়ারের একাধিক ফলস সিগন্যাল তৈরি হতে পারে বা কোন সংকেতের গঠন নাও হতে পারে। যাই হোক না কেন, ফ্ল্যাট মুভমেন্টের ইঙ্গিত পাওয়া মাত্র ট্রেডিং বন্ধ করাই ভালো। 4) ইউরোপীয় সেশনের শুরু থেকে মার্কিন ট্রেডিং সেশনের মাঝামাঝি সময়ে ট্রেডগুলো খোলা উচিত যখন সমস্ত পজিশন ম্যানুয়ালি ক্লোজ করতে হবে। 5) আপনি 30-মিনিটের টাইম ফ্রেমে MACD সূচক থেকে সিগন্যাল ব্যবহার করে ট্রেড করতে পারেন, তবে এটি শুধুমাত্র শক্তিশালী অস্থিরতার মধ্যে ব্যবহার করা উচিত এবং একটি স্পষ্ট প্রবণতা থাকতে হবে যা ট্রেন্ডলাইন বা ট্রেন্ড চ্যানেল দ্বারা নিশ্চিত হওয়া উচিত। 6) যদি দুটি লেভেল একে অপরের খুব কাছাকাছি অবস্থিত হয় (5 থেকে 15 পিপ পর্যন্ত), সেগুলোকে সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেল হিসাবে বিবেচনা করা উচিত। কীভাবে চার্ট বুঝতে হয়: সাপোর্ট এবং রেজিস্ট্যান্স লেভেলগুলো হল সেই লেভেল যা কারেন্সি পেয়ার কেনা বা বিক্রি করার সময় লক্ষ্যমাত্রা হিসাবে কাজ করে। আপনি এই লেভেলগুলোর কাছাকাছি টেক প্রফিট সেট করতে পারেন। লাল লাইন হল চ্যানেল বা ট্রেন্ড লাইন যা বর্তমান প্রবণতা প্রদর্শন করে এবং দেখায় যে এখন কোন দিকে ট্রেড করা ভাল। MACD নির্দেশক (14, 22, এবং 3) একটি হিস্টোগ্রাম এবং একটি সংকেত লাইন নিয়ে গঠিত। যখন এগুলো অতিক্রম করা হয়, সেটি বাজারে এন্ট্রির একটি সিগন্যাল। ট্রেন্ড প্যাটার্ন (চ্যানেল এবং ট্রেন্ডলাইন) এর সাথে এই সূচকটি ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়। গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা এবং অর্থনৈতিক প্রতিবেদন অর্থনৈতিক ক্যালেন্ডারে পাওয়া যেতে পারে এবং এগুলো একটি কারেন্সি পেয়ারের মুভমেন্টকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। অতএব, সেগুলোর প্রকাশের সময়, আমরা মূল্যের তীব্র ওঠানামা এড়াতে যতটা সম্ভব সাবধানে ট্রেড করার বা বাজার থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিই। ফরেক্সে নতুন ট্রেডারদের মনে রাখা উচিত যে প্রতিটি ট্রেড লাভজনক হতে হবে না। একটি সুস্পষ্ট কৌশল এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার বিকাশ হল দীর্ঘ মেয়াদে ট্রেডিংয়ে সাফল্যের চাবিকাঠি। https://ifxpr.com/4cm7pmQ
×
×
  • Create New...

Write what you are looking for and press enter or click the search icon to begin your search